টেলিটকের নেটওয়ার্ক শক্তিশালী করুন

টেলিটক বাংলাদেশের একমাত্র সরকারি মুঠোফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান। অন্যান্য মোবাইল অপারেটরের তুলনায় টেলিটকে কল রেট ও ডেটায় সাশ্রয় বেশি। কিন্তু তা সত্ত্বেও টেলিটক সিমের ব্যবহার নেই বললেই চলে। টেলিটক ছাড়া অন্য সব মুঠোফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বিদেশি শেয়ারভুক্ত। এসব কোম্পানি প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা লাভ করছে। সে তুলনায় টেলিটকে সরকারকে ভর্তুকি দিতে হয়। অনেকেই টেলিটক সম্পর্কে জানেই না। এর কারণ, টেলিটকের দুর্বল নেটওয়ার্ক।

বিজ্ঞাপন

জেলা শহরগুলোতে টেলিটকের নেটওয়ার্ক পাওয়া গেলেও গ্রামাঞ্চলে এর কোনো নেটওয়ার্ক নেই। গ্রামের সব মানুষই অন্য কোম্পানির সিম ব্যবহার করেন। টেলিটকের নেটওয়ার্ক শক্তিশালী হলে এর ব্যবহার বাড়বে। ফলে এতে ভর্তুকি না দিয়ে বরং সরকার বড় অঙ্কের রাজস্ব পাবে। তাই টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

সংবাদপত্রে দেখেছি, পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রে বেসরকারি খাতের প্রতিদ্বন্দ্বীদের তুলনায় এখনো পিছিয়ে থাকায় প্রায় তিন হাজার কোটি টাকার একটি মেগা প্রকল্প গ্রহণ করেছে রাষ্ট্রীয় মোবাইল অপারেটর কোম্পানি টেলিটক। নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং উন্নত সেবা প্রদানই এই প্রকল্পের মূল লক্ষ্য। বলা হচ্ছে, এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে ২০২৪ সালের মধ্যে দেশের শতভাগ অঞ্চল টেলিটক নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে।

বিজ্ঞাপন

বর্তমানে টেলিটকের গ্রাহক সংখ্যা বলা হয় অর্ধকোটির কাছাকাছি। বলা হচ্ছে, আরও সাড়ে ৪০০ টাওয়ার নির্মাণ হলে আরও ১১ লাখ গ্রাহক বাড়বে। মূলত শুধু ওই ১১ লাখ গ্রাহক বাড়াই বড় কথা নয়, বরং দুর্গম এলাকার মানুষকে টেলিটকের নেটওয়ার্কের আওতায় আনাই হচ্ছে বড় উদ্দেশ্য। মোবাইল ও ইন্টারনেট কানেক্টিভিটির মধ্যে না আনতে পারলে দুর্গম এলাকার মানুষ আধুনিক সেবা থেকে বঞ্চিত হবে। এসব কাজ দ্রুততার সঙ্গে করতে হবে।

ওবাইদুর সাঈদ

শিক্ষার্থী, ঢাকা কলেজ, ঢাকা

মন্তব্য পড়ুন 0