দুর্ঘটনারোধে যা করা যেতে পারে

সম্প্রতি রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি বছরের শুধু অক্টোবর মাসেই ৩১৪টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে নিহত হয়েছেন ৩৮৩ জন এবং আহত হয়েছেন ৬৯৪ জন। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ৬৮ জন নারী ও ৪১টি শিশু। তারা আরও বলেছে, সেপ্টেম্বরের তুলনায় অক্টোবরে সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি উভয়ই বেড়েছে। যেখানে সেপ্টেম্বরে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছিল ২৭৩টি এবং নিহত হয়েছিলেন ৩০৪ জন।

বিজ্ঞাপন

বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, বেপরোয়া গতিতে যানবাহন চালানো, বিপজ্জনক ওভারটেক, ফিটনেসবিহীন যানবাহন, ট্রাফিক আইন লঙ্ঘন, অদক্ষ ও মাদকাসক্ত চালক কর্তৃক গাড়ি চালানো, রাস্তাঘাট নির্মাণে ত্রুটি, পথচারী-সেতু ব্যবহার না করা, ঝুঁকিপূর্ণ রাস্তা পারাপার ও আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাব সড়ক দুর্ঘটনার প্রধান কারণ। দুর্ঘটনার এত সব কারণ জানা থাকা সত্ত্বেও শৃঙ্খলা ফেরে না সড়কে, যা খুবই দুঃখজনক। ২০১৮ সালে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে প্রধানমন্ত্রী দূরপাল্লার বাসযাত্রায় বিকল্প চালক রাখা, পাঁচ ঘণ্টা পরপর চালক পরিবর্তন করা, চালক ও সহযোগীদের প্রশিক্ষণ, চালক ও যাত্রীদের সিটবেল্ট রাখা এবং মহাসড়কের পাশে চালকের জন্য বিশ্রামাগার রাখা—এই পাঁচ দফা নির্দেশনা দিয়েছিলেন। বলতে গেলে সেগুলোও মানা হয় না, যা অনাকাঙ্ক্ষিত সড়ক দুর্ঘটনা আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে।

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো কঠিন নয়, দরকার শুধু আমাদের প্রয়োজনীয় কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন। অনাকাঙ্ক্ষিত সড়ক দুর্ঘটনা রোধে ও সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে নিচের পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে।
১. সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে বিআরটিএ থেকে দুর্নীতি সমূলে উৎপাটন করার বিকল্প নেই।
২. চালকদের বেপরোয়া প্রতিযোগিতার মনোভাব ও গতি রুখতে সচেতনতা ও প্রশিক্ষণের ওপর জোর দিতে বলা হলেও কর্তৃপক্ষ বরাবরই যথাযথ পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়। সুতরাং কর্তৃপক্ষকে উদ্যোগ নিতে হবে।
৩. লাইসেন্স ও ফিটনেসবিহীন গাড়ির চলাচল নিষিদ্ধ করতে হবে এবং নতুন করে যেন লাইসেন্সবিহীন ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি রাস্তায় চলাচল করতে না পারে, সেটি নিশ্চিত করতে হবে।
৪. নির্মাণ ত্রুটির কারণে সড়কে যে দুর্ঘটনাপ্রবণ মোড় রয়েছে, সেগুলো চিহ্নিত করে দ্রুত সংস্কার করতে হবে।
৫. ট্রাফিক আইনকে কার্যকর করা, ঘুষমুক্ত রাখা ও চালকদের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে পর্যাপ্ত জ্ঞান থাকা জরুরি। এ ক্ষেত্রে গণমাধ্যমগুলোতে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে এমনভাবে প্রচারণা করতে হবে, যাতে সবার দৃষ্টিগোচর হয়।
৬. সড়কে পুলিশ ও মোবাইল কোর্টকে আরও বেশি সক্রিয় করে তুলতে হবে।
৭. সড়কে চাপ কমাতে নদী ও রেলপথকে সক্রিয় করা যেতে পারে।


মোহাম্মদ শাহিন
শিক্ষার্থী, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ, সলিমুল্লাহ মুসলিম হল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন