রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা আনুমানিক ৩৬ হাজার এবং হলের সংখ্যা ১৭। এতগুলো আবাসিক হল থাকা সত্ত্বেও বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসন সমস্যা প্রকট। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ হলের তিনটি ব্লকের দুটি ব্লকই সিঙ্গেল ও ডাবল সিটবিশিষ্ট রুম, যার কারণে হলের সংখ্যা অনেক হওয়া সত্ত্বেও আবাসন সমস্যা থেকেই যাচ্ছে। আবার এসব সিঙ্গেল ও ডাবল সিটবিশিষ্ট রুমগুলো দখল করে রাখে প্রভাবশালী শিক্ষার্থীরা। এ কারণে সিংহভাগ দরিদ্র ও সাধারণ শিক্ষার্থী আবাসনের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। আবার সাধারণ শিক্ষার্থী যখন আবাসন পেতে চান, তখন প্রভাবশালী শিক্ষার্থীরা তাঁদের কাছ থেকে দুই হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকা আদায় করেন।

বিজ্ঞাপন

আবাসিক হলের প্রতিটি রুমেই রান্নার জন্য বৈদ্যুতিক হিটারের ব্যবস্থা রয়েছে। প্রতিটি রুমে এক-দুজন রান্নার সঙ্গে জড়িত থাকেন। যাঁরা রান্নার সঙ্গে জড়িত, তাঁরা রুমের পরিবেশ যেমন নষ্ট করেন, তেমনি বাকি রুমমেটদের ব্যাপক অস্বস্তির মধ্যে ফেলে দেন। আবাসিক রুমটাকে তাঁরা রান্নাঘরে পরিণত করেন। অধিকন্তু শীত মৌসুমে রুমের তাপমাত্রা বৃদ্ধির জন্য রাতভর হিটার জ্বালিয়ে ঘুমানোর মাধ্যমে বিদ্যুতের অপচয় করেন।

আবাসিক সমস্যা নিরসনে আবাসিক হলগুলোর প্রতিটিতে গণ রুমের ব্যবস্থাসহ সিঙ্গেল-ডাবল রুমের পরিবর্তে যদি অধিক সিটবিশিষ্ট রুম হতো, তাহলে আরও অধিকসংখ্যক শিক্ষার্থী আবাসনের সুযোগ পেতেন। পাশাপাশি আবাসন পেতে প্রভাবশালী শিক্ষার্থীদের হস্তক্ষেপের পরিবর্তে যদি প্রশাসনের কঠোর তদারকি থাকত, তাহলে দরিদ্র ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা সহজেই আবাসন সুবিধা পেতেন।

এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

* শিক্ষার্থী (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক)

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0