বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাবেক তথ্যমন্ত্রী ইনু বলেন, সাংবাদিকদের জন্য গঠিত মজুরি বোর্ডের সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন সাংবাদিকদের চাকরির নিরাপত্তা ও কর্মসংস্থানের সুবিধা নিশ্চিত করবে। এ ছাড়া সাংবাদিকদের জন্য গঠিত কল্যাণ ট্রাস্টের অধীনে নিঃস্ব সাংবাদিকদের সহায়তার সুযোগ বাড়ানো উচিত। সরকারের মিডিয়া হাউসের মালিকদের অর্থনৈতিকভাবে সহযোগিতা করাও প্রয়োজন, যাতে তারা করোনাকালীন সংকট কাটিয়ে উঠতে পারে।
সরকারি দলের সাংসদ র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেন, ‘আইন একা সাংবাদিকদের নিরাপত্তা দিতে পারে না। সাংবাদিকদের সুরক্ষায় আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে। এ ছাড়াও সাংবাদিকদের সুরক্ষার জন্য মানসম্মত, নৈতিক ও দায়িত্বশীল সাংবাদিকতা নিশ্চিত করা জরুরি।’

আরেক সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুল বলেন, অনেক মিডিয়া হাউস তাদের খবর শেয়ার করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে। এর পরিবর্তে তাদের নিজেদের ওয়েবসাইটা যেন শক্তিশালী হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে।

আর্টিকেল নাইনটিন বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল বলেন, মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক শাসনের সুরক্ষার প্রাথমিক দায়িত্ব সরকারের। সুশীল সমাজ একটি দেশে মানবাধিকার, আইনের শাসন, স্বচ্ছ ও জবাবদিহিমূলক শাসন নিশ্চিত করতে সরকারকে সহায়তা করে। আর্টিকেল নাইনটিন মতপ্রকাশ ও তথ্যের স্বাধীনতা, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং কার্যকর সংস্কার, স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহি নিশ্চিত করতে সরকারের সঙ্গে কাজ করতে চায়।

অন্যান্যের মধ্যে সাংসদ এ কে এম রহমতুল্লাহ, হাবিবা রহমান খান বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আর্টিকেল নাইনটিনের পরামর্শক জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি। বিজ্ঞপ্তি

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন