বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দুই বছর আগে এরশাদের মৃত্যুর পর দলের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে আসেন তাঁর ছোট ভাই জি এম কাদের। এরশাদের মৃত্যুর পর ছেলে এরিকের কাছে থাকতে প্রেসিডেন্ট পার্কে ওঠেন বিদিশা, যার বিরোধিতা করেছিলেন জি এম কাদের। এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে গত জুলাই মাসে জাতীয় পার্টি পুনর্গঠনের ঘোষণা দেন বিদিশা। শনিবার তিনি বলেন, ‘আর মাত্র কয়েক মাস পরেই এরিকের বয়স ২১ হবে। অপেক্ষা করুন। চমকের পর চমক আসবে সামনে।’

বর্তমানে সংসদে বিরোধী দলের ভূমিকায় রয়েছে জাতীয় পার্টি। দলটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও এরশাদের প্রথম স্ত্রী রওশন এরশাদ সংসদে বিরোধী দলের নেতার ভূমিকায় আছেন। অসুস্থতার কারণে তিনি এখন বিদেশে চিকিৎসাধীন।

ওই প্রসঙ্গ তুলে জি এম কাদেরের সমালোনা করেন বিদিশা। তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন রওশন এরশাদ খুব অসুস্থ। তিনি ব্যাংককে আছেন। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, এরই মধ্যে জাতীয় পার্টির যে চেয়ারম্যান আছেন, তিনি প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর পোস্টার থেকে রওশন এরশাদের ছবি মুছে ফেলেছেন। এই অমানবিক কাজটা আসলে তাকেই মানায়।’ জাতীয় পার্টির নেতাদের কেউ কেউ পদ-পদবি বিক্রি করে বিদেশে গাড়ি-বাড়ি করছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

default-image

এরশাদের ছেলে রাহগীর আল মাহি সাদ (সাদ এরশাদ) ও এরিকই আগামী দিনে লাঙ্গলের (দলীয় প্রতীক) ধারক ও বাহক হবে বলে মন্তব্য করেন বিদিশা। তিনি বলেন, পিতার চেয়ারে শুধু ছেলেদেরই শোভা পায়। একমাত্র ছেলেরাই পারে বাবার মান রক্ষা করতে, অন্য কেউ নয়। রওশন এরশাদের ছেলে রাহগীর আল মাহি সাদ বর্তমানে রংপুরে সদর আসনে জাতীয় পার্টির সাংসদ।

নিজের এই তৎপরতার সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ অনেক লোকজন রয়েছেন বলেও দাবি করেন বিদিশা। তিনি বলেন, ‘ভুলে গেলে চলবে না, এরশাদ সাহেব সেনা পরিবারের একজন সদস্য ছিলেন। তিনি ছিলেন সেনাবাহিনীর প্রধান। এরিক আজ একা না। এরিকের সঙ্গে সেনাবাহিনীর চৌকস অফিসার এবং এরশাদকে যাঁরা ভালোবাসেন, তাঁরা আছেন।’

বিদিশার দাবি, জাতীয় পার্টির পুনর্গঠন প্রক্রিয়ায় ইতিমধ্যে ৩০ জেলায় কমিটি গঠন হয়ে গেছে। ৬৪ জেলার কমিটি গঠন হলেই তাঁরা ঢাকায় বৃহত্তর কর্মসূচি দেবেন। ছেলে এরিককে নিয়ে দল ‘পুনর্গঠনের কাজে’ সারা দেশে যাবেন বলেও জানান বিদিশা।

এরিক এরশাদ বলেন, ‘আজ আমার বাবা নেই, কিন্তু আপনারা আছেন। আপনাদের হাত ধরেই আমি আমার লক্ষ্যে পৌঁছাব, আপনাদের কাছ থেকে আমি এতটুকুই চাই।’
আলোচনা সভায় জাতীয় পার্টির চেনাজানা কোনো নেতা ছিলেন না। তবে মঞ্চে বিদিশার সঙ্গে পুনর্গঠন প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত কয়েকজনকে দেখা যায়।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন