রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে পৌর আওয়ামী লীগের এক নেতাকে গত মঙ্গলবার রাতে র‌্যাব অস্ত্রসহ আটক করেছে। তবে পরিবারের অভিযোগ, তাঁকে ফাঁসানো হয়েছে। এর প্রতিবাদে উপজেলা আওয়ামী লীগ গতকাল বুধবার বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে।
আটক নেতা শফিকুল ইসলাম সুজ্জল (৩৮) গোয়ালন্দ পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। দেওয়ানপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে তাঁকে আটক করা হয়।
গতকাল র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নিজ বাড়িতে শফিকুল অস্ত্রসহ অবস্থান করছেন—এ তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে অভিযান চালানো হয়। এ সময় তিনি পালানোর চেষ্টা করেন। তাঁকে আটকের পর খাটের জাজিমের নিচ থেকে একটি পিস্তল, তিনটি তাজা গুলি ও একটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করে র‌্যাব।
শফিকুলের স্ত্রী তানিয়া সুলতানার অভিযোগ, মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে কয়েক ব্যক্তি র‌্যাব পরিচয় দিয়ে ঘরের দরজা খুলতে বলেন। তাঁরা ঘরে ঢুকেই শফিকুলকে বারান্দার খুঁটির সঙ্গে বেঁধে ফেলেন। সবাইকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে শফিকুলের বিছানার নিচে এক র‌্যাব সদস্য কিছু লুকিয়ে রাখেন। তিনি (তানিয়া) এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে তাঁকে ধমক দেওয়া হয়। এরপর র‌্যাব ঘর থেকে অস্ত্র উদ্ধারের কথা জানায়।
র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার মো. আমিনুর রহমান বলেন, ‘র‌্যাবের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তির বক্তব্যই আমার বক্তব্য। এখানে কে কী বলল, সেটা তাদের বিষয়।’
এদিকে শফিকুলের গ্রেপ্তারকে সাজানো নাটক বলছেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। তাঁরা এর প্রতিবাদে গতকাল পৌর জামতলা থেকে মিছিল বের করেন। মিছিল শেষে মানববন্ধন করা হয়। সেখানে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আনিছুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক জুলহাস চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য দেন।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন