মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতারা একমত হয়েছেন। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলা সদরের ভবানীগঞ্জ বাজারে আইনশৃঙ্খলাসংক্রান্ত এক সভায় উভয় দলের নেতারা তাঁদের বক্তব্যে এ মত তুলে ধরেন। বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের ডাকা চলমান কর্মসূচি অবরোধ ও মাঝেমধ্যে হরতালে নাশকতা ঠেকাতে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে জুড়ী থানার পুলিশ এ সভার আয়োজন করে। সভায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, এলাকার ব্যবসায়ী, পরিবহনশ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সন্ধ্যা সাতটার দিকে জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হামিদুর রহমান সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে সভা শুরু হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কুলাউড়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) জুনায়েদ আলম সরকার। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কিশোর রায় চৌধুরী, আওয়ামী লীগের উপজেলা কমিটির আহ্বায়ক আজির উদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক বদরুল হোসেন, বিএনপির উপজেলা কমিটির আহ্বায়ক ও পশ্চিম জুড়ী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মঈন উদ্দিন, শ্রমিক দলের উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাকীম আলী প্রমুখ। সভা সঞ্চালনা করেন ভবানীগঞ্জ বাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক এম এ মোহসীন।
সভায় মঈন উদ্দিন বলেন, ‘জ্বালাও-পোড়াও করে সাধারণ মানুষের বেশি ক্ষতি হচ্ছে। এ ধরনের কর্মসূচি থেকে সরে আসা দরকার। আমরা জুড়ীকে শান্তিপূর্ণ রাখতে চাই।’ আজির উদ্দিন বলেন, ‘এখানে প্রতিদিন গাড়ি চলছে। দোকানপাট খুলছে। অবশ্য মাঝেমধ্যে রাস্তায় যানবাহনে ভাঙচুর ও আগুন ধরানো হচ্ছে। কিছু দুষ্কৃতকারী এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নষ্ট করার চেষ্টা চালাচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। আমরা সহিংসতার বিপক্ষে। জুড়ীর আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আমরা সব সময়ই আন্তরিক।’
এএসপি জুনায়েদ আলম সরকার জানান, জুড়ীর আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি জেলার অন্যান্য এলাকার চেয়ে ভালো। এটা ধরে রাখতে সবার সহযোগিতা দরকার। নাশকতাকারীদের সম্পর্কে যেকোনো সময় ০১৭১৩৩৭৪৪৩৭ মুঠোফোন নম্বরে তথ্য জানাতে তিনি সবাইকে অনুরোধ করেন।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন