বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর নির্বাচন মনিটরিং কমিটির সভায় মাওলানা ইউনুছ আহমাদ এ কথা বলেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, সারা দেশে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী ও কর্মীদের ওপর সরকারদলীয় সন্ত্রাসীরা নজিরবিহীন হয়রানি করছে। স্থানীয় প্রশাসন এবং রিটার্নিং কর্মকর্তারা সরকারদলীয় দস্যুদের নিয়ন্ত্রণে কোনো রকম ভূমিকা পালন করছে না বরং তাদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হতে সহযোগিতা করছে। তিনি সরকারকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, সরকারদলীয় সন্ত্রাসীদের এসব দস্যুতা বন্ধ না হলে অনিবার্যভাবে গণবিস্ফোরণ তৈরি হবে।

এ সময় ইসলামী আন্দোলনের মহাসচিব দেশের বেশ কয়েকটি স্থানে দলীয় কর্মীদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ করেন। এর মধ্যে রয়েছে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার কাশিপুর ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী ওমর ফারুকের ওপর হামলা। তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন মঙ্গলবার কুমিল্লার হোমনা থানার নিলখি ইউনিয়নে হাতপাখা প্রতীকের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মো. ময়নাল হোসেনের মনোনয়নপত্র কেড়ে নিয়ে ছিঁড়ে ফেলা। মাওলানা ইউনুছ আহমাদের দাবি, হোমনা থানা যুবলীগ সভাপতি নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে ২০/২৫ জন সন্ত্রাসী ময়নাল হোসেনকে বেধড়ক মারধর করে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলনের প্রেসিডিয়াম সদস্য আশরাফ আলী আকন ও মাহবুবুর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, আমিনুল ইসলাম ও আশরাফুল আলম, সহকারী মহাসচিব শেখ ফজলে বারী মাসউদ ও ইমতিয়াজ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম আতিকুর রহমান প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন