বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতি হাটে শুধু গরুর বাজার থেকেই অন্তত দেড় লাখ টাকা খাজনা আদায় করা হয়। সেই হিসাবে, মাসে খাজনা আদায় দাঁড়ায় ১২ লাখ টাকা। এ ছাড়া গত কোরবানির পশুর হাট ঘিরে এক মাসে কয়েক গুণ বেশি খাজনা আদায় করা হয়েছে। শুধু কোরবানির পশুর হাট ঘিরে এক মাসে প্রতি হাটে অন্তত সাড়ে ৫ লাখ টাকা খাজনা আদায় হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট অনেকে জানিয়েছেন। সেই হিসাবে, এক মাসে গরুর হাট থেকে আদায় হয়েছে ৪৪ লাখ টাকা। ইজারা না নিয়েও চলতি ১৪২৮ সনের গত পাঁচ মাসে ফয়সাল আহমেদ অবৈধভাবে ৯২ লাখ টাকা আদায় করেছেন।

ওই হাটের সাবেক একাধিক ইজারাদার বলেছেন, গরুর হাট ছাড়াও ওই হাটের মাছবাজার, তরকারি, হাঁস-মুরগি-কবুতর, ধান, পান ও
ফলের বাজার থেকে প্রতি হাটে অন্তত ১৫ হাজার টাকা খাজনা আদায় করা হয়। সেই হিসাবে গত পাঁচ মাসে ৬ লাখ টাকা খাজনা আদায়
করা হয়েছে। গরুর হাট ও অন্য সব বাজার মিলিয়ে নাচনাপাড়া হাট থেকে গত পাঁচ মাসে ৯৮ লাখ টাকা খাজনা আদায় করা হয়েছে। তার বিপরীতে সরকারি কোষাগারে কোনো টাকা জমা পড়েনি।

ফয়সাল আহমেদ মেসার্স ফারিয়া ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মালিক ও পাথরঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। অভিযোগ প্রসঙ্গে
তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘গত মঙ্গলবার বরগুনা থেকে ম্যাজিস্ট্রেট স্যার এসেছিলেন। আসার পর খাজনা আদায় বন্ধ রেখেছি। আমি
টাকা দিতে চাই, মামলার কারণে দিতে পারছি না। আগামী তারিখে মামলাটির একটি ফয়সালার সম্ভাবনা রয়েছে। ফয়সালা হলেই টাকা জমা দিয়ে দেব।’

গত মঙ্গলবার দুপুরে নাচনাপাড়া হাটে গিয়ে দেখা যায়, বাজারে তিন শতাধিক গরু রয়েছে। সকাল থেকে গরু বেচাকেনা চলছে। গরুর হাটের সামনে একটি পাকা ভবনে সিসি ক্যামেরা নিয়ন্ত্রিত কক্ষে খাজনা আদায় করছেন ফয়সাল আহমেদ ও তাঁর লোকজন।

পরিচয় গোপন রাখার শর্তে মঠবাড়িয়া উপজেলার এক ব্যাপারী প্রথম আলোকে বলেন, ‘আজ (মঙ্গলবার) প্রশাসনের লোকজন থাকায় গরু বেশি কিনতে পারিনি। তবু ৩৩ হাজার টাকায় একটি গরু কেনায় ৬০০ টাকা খাজনা দিতে হয়েছে। তবে রসিদে খাজনার কথা উল্লেখ নেই। এ ছাড়া ওই গরু যে বিক্রি করেছেন তাঁকেও ১০০ টাকা দিতে হয়েছে।’

জানতে চাইলে পাথরঘাটার ইউএনও হোসাইন মুহাম্মদ আল মুজাহিদ প্রথম আলোকে বলেন, মঙ্গলবার ওই হাটে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গিয়েছিলেন। প্রকৃতপক্ষে ওই হাট ইজারা দেওয়া হয়নি। এ সুযোগে ফয়সাল আহমেদ ও তাঁর লোকজন প্রতারণা করে মানুষের কাছ থেকে খাজনার নামে টাকা নিচ্ছেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন