বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মির্জা ফখরুল বলেন, বর্তমান সরকার গণতন্ত্রের মোড়কে একদলীয় বাকশাল কায়েম করতে চাচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ লড়াই করতে জানে। তারা স্বাধীনতার জন্য লড়াই করেছে। এই বাংলাদেশের মানুষকে পরাজিত করা যাবে না। সরকারকে জনগণের কাছেই ক্ষমতা দিতে হবে।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, বর্তমান সরকার রাষ্ট্রকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। কোনো জবাবদিহি নেই। এখন কাজের সময়। এই সংকট থেকে বেরিয়ে আসার লড়াই-সংগ্রাম একা বিএনপি নয়, সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সংকট দূর করতে হবে। বিএনপির সঙ্গে দেশপ্রেমী সব দলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন করতে হবে। ভয়ানক দানব সরকারকে সরিয়ে জনগণের সরকার গঠন করতে হবে।

তরুণ প্রজন্মের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমাদের তরুণ সমাজ, যারা সেদিন সোচ্চার হয়েছিল, তাদের আজ কোনো উদ্যোগ দেখছি না, তরুণদের মাধ্যমে পরিবর্তন আসে। আজ তাদের এগিয়ে আসতে হবে।’

স্মরণসভায় স্বাগত বক্তব্য দেন বুয়েট ছাত্রদলের সভাপতি আফিস হোসেন। অ্যাসোসিয়েশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রিয়াজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন নেতা-কর্মী অংশগ্রহণ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে রিয়াজুল ইসলাম বলেন, শুধু বুয়েটের আবরার ফাহাদ নয়, দেশে হাজার হাজার মানুষ গুম-খুনের শিকার। এরপরও দেশের মানুষ নিশ্চুপ হয়ে রয়েছে। তাদের জাগ্রত করতে হবে। আর এই দায়িত্ব নিতে হবে বিএনপিকে। তাদের আন্দোলনের ডাক দিতে হবে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন