default-image

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ধর্মবিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল মোস্তফা। আজ বুধবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা গত বছরের ২০ ও ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় কাউন্সিল কর্তৃক প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সিরাজুল মোস্তফাকে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক হিসেবে মনোনয়ন প্রদান করেছেন।

সিরাজুল মোস্তফা পেশায় আইনজীবী। কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন তিনি। স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে কক্সবাজার জেলা থেকে তিনিই প্রথম পদ পেলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন।

সিরাজুল মোস্তফা প্রথম আলোকে বলেন, ‘দলের জন্য দীর্ঘদিন বিশ্বস্ত থেকে সততা ও নৈতিকতা রক্ষা করে অবদান রেখে আসছি। আন্দোলন-সংগ্রামে দলের নেতা–কর্মীদের সাহস জুগিয়েছি। এর পুরস্কারস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে পদটি দিয়েছেন। এ সম্মান দলের নেতা–কর্মীসহ পুরো জেলাবাসীর।’

বিজ্ঞাপন

কেন্দ্রীয় কমিটিতে ধর্মবিষয়ক সম্পাদক হওয়ার খবরটি গতকাল মঙ্গলবার মৌখিকভাবে সিরাজুল মোস্তফাকে অবগত করেন দলের সাধারণ সম্পাদক মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের ২৮ জানুয়ারি জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও কাউন্সিলে সভাপতি পদে সিরাজুল মোস্তফা এবং সাধারণ সম্পাদক পদে মুজিবুর রহমানের নাম ঘোষণা করা হয়। পরে ১৩ অক্টোবর ৭১ সদস্যবিশিষ্ট কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা ও তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

১৯৯৬ সালে কক্সবাজার-২ (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) আসন থেকে দলের মনোনয়ন পেয়েছিলেন সিরাজুল মোস্তফা। সেই নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীর কাছে হেরে যান তিনি। মাদকবিরোধী আন্দোলনের সহযাত্রী হিসেবে ব্যাপক পরিচিত ছিলেন তিনি। দীর্ঘ আইন পেশার জীবনে তিনি কোনো দিন আদালতে ইয়াবাসহ মাদক মামলায় লড়েননি।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান বলেন, সিরাজুল মোস্তফা দলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পাচ্ছেন কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি।

আওয়ামী লীগের ওই বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ সভাপতির নির্দেশক্রমে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ফরিদুল ইসলাম চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব প্রদান করছে। জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হকের মৃত্যুতে সভাপতির পদটি শূন্য হওয়ায় জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের সহসভাপতি মো. নূর কুতুব আলম মান্নানকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য করুন