default-image

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হয়েছে শাল্লায়। ওবায়দুল কাদের সাহেব বললেন, এটা বিএনপি করেছেন। কিন্তু ধরা পড়ল কে? ১ নম্বর আসামি যুবলীগের স্বাধীন মেম্বর। আসলে সমস্যাটা হয়েছে, ওরা তো প্রতিরাতে দুঃস্বপ্ন দেখে, এই বিএনপি এল। সুতরাং ওদের বিএনপি ছাড়া কোনো কথা বের হয় না। সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সব আওয়ামী লীগের আমলে হয়েছে।’

আজ বুধবার রাজধানী জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘স্বৈরাচার এরশাদের অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল ২৪ মার্চ কালো দিবস উপলক্ষে’ আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এর আয়োজক ছিল ৯০–এর ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সুবর্ণজয়ন্তী যে পালন করছেন। কিন্তু মানুষ কোথায় আপনাদের সঙ্গে? জনগণ তো সঙ্গে নাই।’

রোহিঙ্গা শিবিরে অগ্নিকাণ্ড প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানের চেষ্টা না করে এটাকে ব্যবহার করছে সরকার। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান না হওয়া সরকারের কূটনৈতিক ব্যর্থতা বলে উল্লেখ করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

বর্তমান সময়ে ছাত্র ও যুবদলের নেতাদের সমালোচনা করেন মির্জা ফখরুল। সভার মঞ্চে বসা নেতাদের দেখিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখানে যাঁরা বসে আছেন, সবাই ছাত্রনেতা। এরা এরশাদের পতন ঘটিয়েছিলেন।’ এখনকার ছাত্রনেতাদের উদ্দেশে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘অন্যায়–অবিচারের বিরুদ্ধে রাজপথ ছাত্রদের দ্বারা প্রকম্পিত হওয়া উচিত। যত দিন পর্যন্ত বোধ বা আবেগ না আসবে, তত দিন পর্যন্ত শৃঙ্খল ভাঙা যাবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘বিপ্লব–সংগ্রাম ছোট জিনিস না। অনেককে প্রাণ দিতে হয়েছে, অনেকে গুম হয়েছেন। যদিও ২০১৩, ২০১৫ সালে আমরা আন্দোলন করেছি। কিন্তু এই সরকারকে সরাতে পারিনি। এ ব্যর্থতা সবার।’

দেশে আবার করোনা ছড়িয়ে পড়ছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, নিয়ন্ত্রণের জন্য কাজ করা দরকার ছিল। কিন্তু সরকার তা করেনি। বিএনপি টিকার বিরুদ্ধে কখনো কথা বলেনি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা ভ্যাকসিনের পক্ষে। আমরা বলতে চেয়েছি, ভ্যাকসিন নিয়ে দুর্নীতি করেছেন।’ এ ছাড়া বলেন, করোনা নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে সরকার সচেতনতা সৃষ্টি করতে পারেনি।

ডাকসুর সাবেক ভিপি আমানুল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আসাদুজ্জামান রিপন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক ছাত্র নেতা নাজিম উদ্দিন আলম, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, সাবেক ছাত্রনেতা জহিরউদ্দিন স্বপন প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন