বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কুদরত উল্লাহ কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য এবং ঝিলংজা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ১১ নভেম্বর ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে কুদরত উল্লাহ ওই ওয়ার্ডে সদস্য পদে লড়ছেন।

কুদরত উল্লাহর পরিবারের দাবি, নির্বাচনসংক্রান্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের লোকজন হত্যার জন্যই দুই ভাইকে গুলি চালিয়েছে। কক্সবাজার শহরের লিংকরোডে কুদরত উল্লাহর ব্যক্তিগত কার্যালয়ে বসে কুদরত উল্লাহ তাঁর ভাই জহিরুল ইসলামসহ নেতা-কর্মীরা নির্বাচন নিয়ে আলোচনা করছিলেন। এ সময় মোটরসাইকেল আরোহী কয়েকজন দুর্বৃত্ত কার্যালয়ে ঢুকে দুই ভাইকে গুলি করে পালিয়ে যায়।

আহত ব্যক্তিদের বরাত দিয়ে জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল্লাহ আনসারী বলেন, আসন্ন নির্বাচন ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী লিয়াকত আলী ও তাঁর সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যরা মোটরসাইকেল নিয়ে এসে জহিরুল ইসলাম ও কুদরত উল্লাহকে গুলি করে পালিয়ে যায়। ‘ছররা’ গুলিতে কুদরত উল্লাহ সিকদারের শরীর ক্ষতবিক্ষত হয়। হাতের একটি আঙুলও ছিঁড়ে গেছে। তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক। গুলিতে জহিরুল ইসলামের শরীরও ক্ষতবিক্ষত হয়, তবে তিনি শঙ্কামুক্ত।

অভিযোগের বিষয়ে ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী লিয়াকত আলীর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) শাহীন আবদুর রহমান বলেন, গুলিবিদ্ধ দুজনকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার পুলিশ জানিয়েছে, সন্ত্রাসীদের ধরতে পুলিশ এলাকায় অভিযান চালাচ্ছে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন