করোনাভাইরাসে বদলে যাচ্ছে নির্বাচনী প্রচারের ধরন

বিজ্ঞাপন
default-image

করোনাভাইরাসে ছন্দপতন ঘটেছে বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) শূন্য আসনে ২৯ মার্চ অনুষ্ঠেয় উপনির্বাচনের প্রচারে। জনসমাগম এড়িয়ে চলতে নৌকা ও ধানের শীষের প্রার্থীরা নির্বাচনী সভা-সমাবেশ ও পথসভার বদলে পাড়া-মহল্লায় উঠান বৈঠক করছেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের কাছে ভোট চাইছেন, গণসংযোগ করেছেন।

গতকাল শুক্রবার দিনভর আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাহাদারা মান্নান সোনাতলা উপজেলায় নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়ে উঠান বৈঠক করেন। বিএনপির প্রার্থী আহসানুল তৈয়ব জাকির ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চেয়ে গণসংযোগ করেন সারিয়াকান্দি উপজেলায়।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলা ছাড়াও করোনাভাইরাসের কারণে নির্বাচনী সভা-সমাবেশের বদলে গতকাল সোনাতলা উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাহাদারার নৌকার সমর্থনে প্রায় ১০টি স্থানে উঠান ও খুলি বৈঠক হয়। এসব বৈঠকে নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়ে বক্তব্য দেন বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাশরাফি হিরো, সোনাতলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিনহাদুজ্জামান লীটন প্রমুখ। উঠান ও খুলি বৈঠকে নৌকার প্রার্থী সাহাদারা মান্নানও ভোটারদের কাছে ভোট চেয়ে বক্তব্য দেন।

সোনাতলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিনহাদুজ্জামান লীটন প্রথম আলোকে বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে জনসমাগম এড়াতে এবং নির্বাচনী আচরণবিধির প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে আমরা সমাবেশের বদলে নৌকার পক্ষে উঠান ও খুলি বৈঠক, গণসংযোগ করছি।’

default-image

অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী একেএম আহনাসানুল তৈয়ব জাকিরের পক্ষে ভোট চেয়ে সারিয়াকান্দি উপজেলা সদর, কুতুবপুর, শোলারতাইড় ও মথুরাপাড়ায় পথসভা ও গণসংযোগ করেছেন কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহাজাহানের নেতৃত্বে একটি দল। পথসভায় বিএনপির চেয়ারপারসনকে কারাগার থেকে মুক্ত করতে এবং তারেক রহমানকে দেশে ফেরাতে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চাওয়া হয়।

পথসভায় বিএনপির প্রার্থী একেএম আহসানুল তৈয়ব ছাড়াও কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক সাংসদ হেলালুজ্জামান তালুকদার, বগুড়া-১ আসনের সাবেক সাংসদ কাজী রফিকুল ইসলাম, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন প্রমুখ বক্তব্য দেন।

জয়নাল আবেদীন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা ভোটারদের বলছি, ধানের শীষ বিজয়ী হলে গণতন্ত্রের বিজয় হবে। দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়া সহজ হবে এবং তারেক রহমানকে দেশে ফেরানো সম্ভব হবে। তবে ভোটারদের শঙ্কা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ কারচুপি করে কিনা, তা নিয়ে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন