default-image

কারাগারে কোনো মৃত্যুর ঘটনায় আইন বাতিলের দাবিকে আইনহীনতারই নামান্তর হিসেবে বর্ণনা করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আজ বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘কোনো আইনে যদি কেউ গ্রেপ্তার হয় এবং তিনি যদি কারাগারে স্বাভাবিকভাবে বা কোনো কারণে মৃত্যুবরণ করেন, তাহলে যদি সেই আইন বাতিল করতে হয়, তাহলে তো বাংলাদেশে সব আইনই বাতিল করার কথা আসে।’

অন্যান্য আইনেও মানুষ গ্রেপ্তার হয় এবং কারাগারে নানা কারণে মৃত্যু হয়, তাহলে সেসব আইনও কি বাতিল করে দিতে হবে—প্রশ্ন রাখেন মন্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলে নাগরিক সমাজের দাবির প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তাঁরা কয়েকজন নাগরিক এটা বলেছেন। বাংলাদেশে আরও বহু নাগরিক আছেন। নাগরিক বলতে শুধু কয়েকজন যাঁরা সব সময় প্রেসক্লাবের সামনে দাঁড়িয়ে সরকারের বিরুদ্ধে বক্তৃতা করেন, তাঁদের বোঝায় না, বাংলাদেশে সুশীলসমাজের আরও লাখ লাখ নাগরিক আছেন।’

আর ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট সব মানুষকে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যখন এই ডিজিটাল বিষয়টি ছিল না, তখন আইনের প্রয়োজন ছিল না। এখন যখন ডিজিটাল বিষয়টি আসছে, ডিজিটাল নিরাপত্তার বিষয়টিও আসছে। এ ধরনের আইন বিভিন্ন দেশে আছে, সেখানেও গ্রেপ্তার ও শাস্তি হচ্ছে। তবে এই আইনের যাতে অপপ্রয়োগ না হয়, সেদিকে আমরা সতর্ক আছি এবং থাকব।’

জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিলের প্রস্তাব সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘প্রথমত, জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধে সেক্টর কমান্ডার ছিলেন বটে কিন্তু তাঁর ভূমিকাটা রহস্যজনক ছিল। কোনো মুক্তিযোদ্ধাকে কারও বাড়িতে পানি খাওয়ানো হলেও সে কারণে সেই বাড়ির ওপর নির্যাতন হয়েছে। অথচ মুক্তিযুদ্ধের একটি সেক্টরের কমান্ডার জিয়াউর রহমানের স্ত্রী আর পুত্ররা একেবারে পরম অতিথির আদরে পাকিস্তানিদের ক্যান্টনমেন্টে আশ্রয় নেন—এটা রহস্যজনক।’

মন্ত্রী বলেন, ‘দ্বিতীয়ত, মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি সেনা কর্মকর্তা জিয়াকে চিঠি লিখেছিল যে তাঁর কর্মকাণ্ডে পাকিস্তানিরা খুশি। সেই চিঠির কপি রয়েছে। তৃতীয়ত, ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জিয়াউর রহমান ওতপ্রোতভাবে যুক্ত ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের তিনি পুনর্বাসিত করেছিলেন।’

খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিনের বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ বিষয়টির আইনগত দিকগুলো নিয়ে স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে বলে জানান।

এর আগে তথ্যমন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) পুরকৌশল বিভাগ আয়োজিত তিন দিনব্যাপী ‘ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন অ্যাডভান্সমেন্ট অব সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং’–এর উদ্বোধন করেন। বিজ্ঞপ্তি।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন