বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অবশ্য তালিকা প্রকাশের আগে থেকে প্রচার করা হয়, এই ইউপিতে উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. সেলিম হক দলীয় মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন। তাঁকে অভিনন্দনও জানানো হয়। কিন্তু আলাউদ্দিনের নাম তালিকায় আসার পর এই পক্ষ হতাশ হয়।

তালিকা প্রকাশের পর আলাউদ্দিন নিজে তাঁর ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে বলেন, ছাপার ভুলের কারণে তাঁর নাম এসেছে। চরপাথরঘাটায় নৌকার প্রার্থী সেলিম হকই।

কর্ণফুলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলীও ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে বলেন, আলাউদ্দিনের নাম তালিকায় আসাটা মনোনয়ন বোর্ডের ভুল। তবে পরে তিনি তাঁর এই স্ট্যাটাস মুছে দেন।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ বলছে, দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে ভুলের কোনো সুযোগ নেই। দলীয় সভাপতির সিদ্ধান্তক্রমেই প্রার্থী মনোনয়ন চূড়ান্ত হয়েছে।

জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া আজ রোববার সকালে প্রথম আলোকে বলেন, দলীয় সভাপতির উপস্থিতিতে মনোনয়ন চূড়ান্ত হয়েছে। আলাউদ্দিনকে বোর্ড মনোনয়ন দিয়েছে। দুজনের মধ্যে সেলিমকে বাদ দিয়ে আলাউদ্দিনের নাম চূড়ান্ত করা হয়। এখানে ছাপার ভুলের কোনো সুযোগ নেই।

এদিকে, চরপাথরঘাটা ইউপিতে প্রার্থী পরিবর্তনের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য ও ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের কাছে আবেদন জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন। উপজেলা আওয়ামী লীগও এই ইউপিতে প্রার্থী পরিবর্তনের জন্য কেন্দ্রে চিঠি দিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, চরপাথরঘাটার মনোনয়ন পরিবর্তনের জন্য আবেদন স্থানীয় সংসদ সদস্য আবেদন করেছেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগও একই আবেদন করেছে। যেহেতু দলীয় প্রধান মনোনয়ন দিয়েছেন, তাই পরিবর্তনের এখতিয়ারও তাঁর।

মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৭ মে। এই সময়ের মধ্যে মনোনয়ন পরিবর্তন না হলে আলাউদ্দিনই চরপাথরঘাটা ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী থাকবেন। আগামী ১৫ জুন ভোট হবে।

জানতে চাইলে আলাউদ্দিন বলেন, ‘মনোনয়নের বিষয়ে আমি ছাপার ভুল হিসেবে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম।’

চাপে পড়ে এই স্ট্যাটাস দেওয়া কি না, জানতে চাইলে আলাউদ্দিন বলেন, তিনি পরে কথা বলবেন। এই কথা বলেই তিনি ফোন কেটে দেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন