default-image

বিএনপিকে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ফিরে আসার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ওই দলটিকে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ক্ষমতায় যেতে হবে, নিরপরাধ জনগণের মৃতদেহের ওপর দিয়ে, সহিংসতা বা শিক্ষার্থীদের ক্ষতি করে নয়।
গতকাল রোববার সচিবালয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে কর্মকর্তাদের উদ্দেশে দেওয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় ছিল এবং তারা আবারও ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারে। কিন্তু তারা বাস-ট্রাকচালক, শিশু এবং নিরপরাধ জনগণের আগুনে পোড়া দেহের ওপর দিয়ে ক্ষমতায় যেতে পারে না। তাদের অবশ্যই একটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপির নেত্রী হয়তো উন্মাদ বা মানসিক বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন, তা না হলে কীভাবে তিনি দিনের পর দিন নিজের বাসা ছেড়ে কার্যালয়ে অবস্থান করেন। এটা ঠিক স্পষ্ট নয় যে তিনি কী ধরনের বিপ্লবের সূচনা প্রত্যাশা করেন। কিন্তু এটা সত্য যে তিনি নরহত্যা করছেন এমনকি শিশুদেরও জীবন্ত পুড়িয়ে মারছেন।
‘কিছু মানুষ হত্যা, আরও অনেককে বিকলাঙ্গ, যানবাহন পোড়ানো এবং সরকারি ও বেসরকারি সম্পত্তি ধ্বংস ছাড়া এ ধরনের আন্দোলন থেকে বিএনপির অর্জন কী’ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যদি বিএনপি মনে করে এই ধ্বংসযজ্ঞ তাদের অর্জন, তাহলে জাতির জন্য তা খুবই দুর্ভাগ্যজনক।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার শুধু শুক্র ও শনিবারে এসএসসি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, কারণ ছেলেমেয়েরা ঝুঁকির মধ্যে পরীক্ষা হলে যেতে পারে না। তাই নতুন করে পরীক্ষার সময়সূচি তৈরি করা হয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা আশঙ্কা প্রকাশ করেন, বিএনপি-জামায়াত সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও হরতাল আহ্বান করতে পারে।
বিএনপি ও জামায়াত ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করে বিধায় তাদের বিশ্বাস করা যায় না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত চায় না জনগণ শিক্ষিত হোক, যদি জনগণ শিক্ষিত হয় তাহলে তারা জনগণকে ভুল পথে পরিচালিত করতে পারবে না।
শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ। ‘সেকু৵লারিজম’ মানে নাস্তিকতা নয়। সব ধর্মের মানুষের ধর্মীয়, রাজনৈতিক ও সামাজিক অধিকার নিশ্চিত করতে এটি হলো একটি রাষ্ট্রীয় নীতি।
অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ধর্মমন্ত্রী এম মতিউর রহমান ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব চৌধুরী মোহাম্মদ বাবুল হাসান। এ সময় মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন