বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে অবস্থানরত তাঁর কর্মকর্তা ও নিরাপত্তারক্ষীদের জন্য আজ শুক্রবার দুপুরের খাবার নিতে পুলিশ বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
কার্যালয়ে অবস্থানরত বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার প্রথম আলোকে বলেন, আজ দুপুরে একটি ভ্যানে করে বাইরে থেকে দুপুরের খাবার আনা হয়। কিন্তু কার্যালয়ের বাইরে অবস্থানরত একজন পুলিশ কর্মকর্তা খাবারসহ ভ্যানটিকে ভেতরে ঢুকতে না দিয়ে ফেরত পাঠিয়েছেন। গুলশান থানার পুলিশ দাবি করেছে, খাবার ফেরত পাঠানোর বিষয়ে তারা অবগত নয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বুধবার রাত আটটায় ওই কার্যালয়ে অবস্থানরত ব্যক্তিদের জন্য খাবার এলেও পুলিশ খাবারের ভ্যানটি ফেরত পাঠিয়ে দেয়। এরপর গতকাল সকালের নাশতা, দুপুর ও রাতের খাবারও ভেতরে নিতে দেওয়া হয়নি।
দলীয় সূত্র জানায়, পুলিশ খাবার নিতে বাধা দেওয়ার পর গতকাল বৃহস্পতিবার কার্যালয়ের ভেতরেই সাদামাটা রান্নার ব্যবস্থা করা হয়। এ ছাড়া কার্যালয়ে গতকাল বিকেলে আরাফাত রহমান কোকোর রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়ার পর তবারক দেওয়া হয়। অনেকে সেটা খেয়েছেন।
গতকাল বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান বলেন, ‘শুকনো খাবার, ফলমূল, জুস ইত্যাদি খেয়ে এ পর্যন্ত আছি। এই কার্যালয়ে যাঁরা আছেন, তাঁরাও একইভাবে শুকনো খাবার খেয়ে আছেন।’
সালাহ উদ্দিন আহমদ গতকাল বিবৃতিতে অভিযোগ করেন, বুধবার রাতে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে খাবার ও পানি সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। ভাতে মারার, পানিতে মারার নীতি অবলম্বন করে বিদ্যুৎ, টেলিফোন, ইন্টারনেট, কেবলসহ সব যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে শেখ হাসিনা নিষ্ঠুর কায়দায় খালেদা জিয়াকে হত্যার ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন