বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে বেসরকারি মুঠোফোন কোম্পানি গ্রামীণফোনের নেটওয়ার্ক সচল হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুর থেকে কার্যালয়ের ভেতর থেকে গ্রামীণফোনে কথা বলা যাচ্ছে। 
অন্যান্য বেসরকারি মুঠোফোন কোম্পানির নেটওয়ার্কও সচল করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।
বিএনপির চেয়ারপারসন কার্যালয়ের সূত্র জানায়, আজ দুপুর থেকে গ্রামীণফোনের নেটওয়ার্ক পাওয়া যাচ্ছে। তবে মুঠোফোন ছাড়া অন্য সংযোগগুলো এখনো বন্ধ আছে।
গত ৩০ জানুয়ারি দিবাগত রাত পৌনে তিনটায় খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের বিদ্যুৎ​ সংযোগ কেটে দেওয়া হয়। এর পরদিন দুপুরের দিকে বিভিন্ন মুঠোফোন কোম্পানির সংযোগ, ইন্টারনেট, কেবল টিভি, টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। প্রায় ১৯ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর ৩১ জানুয়ারি রাত ১০টার দিকে বিদ্যুৎ সংযোগ পুনঃস্থাপন করা হয়। তবে অন্য সংযোগগুলো বিচ্ছিন্ন ছিল। টেলিটক ছাড়া অন্য ফোন নেটওয়ার্ক পাওয়া যাচ্ছিল না।
একাধিক মুঠোফোন কোম্পানির সূত্রে জানা গেছে, আজ মঙ্গলবার দূতাবাসগুলোর মুঠোফোন নেটওয়ার্ক চালু করে দিতে বিটিআরসি থেকে মৌখিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে গুলশান এলাকায় মুঠোফোন কোম্পানিগুলোর নেটওয়ার্ক সচল করা হয়। তাঁরা বলেন, সুনির্দিষ্ট কোনো বাড়িতে নেটওয়ার্ক চালু বা বন্ধ করা সম্ভব নয়। ভিটিএসের ট্রান্সিভার (ট্রান্সমিটার ও রিসিভার) চালু করে দেওয়ার কারণে খালেদা জিয়ার কার্যালয়েও নেটওয়ার্ক পাওয়া যেতে পারে।
বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশানের কার্যালয়ের আশপাশে মুঠোফোনের নেটওয়ার্কের জটিলতার কারণে টেলিফোন যোগাযোগ ও ইন্টারনেট সংযোগের ক্ষেত্রে সমস্যায় ছিল কয়েকটি দূতাবাস। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের আশপাশে জাপান, নেদারল্যান্ডস ও স্পেন দূতাবাস মুঠোফোনের নেটওয়ার্কের সমস্যার কারণে টেলিফোন ও ইন্টারনেট ব্যবহারে অসুবিধার বিষয়টি মন্ত্রণালয়কে জানায়। তিন দূতাবাসের অনুরোধের বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে(বিটিআরসি)জানিয়েছিল।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন