default-image

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কার্যালয় ঘেরাও করতে আজ সোমবার সকাল

default-image

থেকে রাজধানীর গুলশানে জড়ো হচ্ছেন শ্রমিক-কর্মচারী-পেশাজীবী-মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদের নেতা-কর্মীরা। কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সমন্বয় পরিষদের আহ্বায়ক নৌমন্ত্রী শাজাহান খান।
বিএনপি-জামায়াত জোটের হরতাল-অবরোধের নামে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, সন্ত্রাস-নৈরাজ্য, পেট্রলবোমা মেরে মানুষ হত্যার প্রতিবাদে এ কর্মসূচি পালন করছে সমন্বয় পরিষদ। নৌমন্ত্রী শাজাহান খান গতকাল রোববার এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কর্মসূচি পালনের উদ্দেশে আজ সকাল থেকে গুলশান সেন্ট্রাল পার্কে জমায়েত হতে থাকেন সমন্বয় পরিষদের নেতা-কর্মীরা। বাসে করে ঢাকা ও ঢাকার অাশপাশের এলাকা থেকে তাঁরা সেখানে আসতে থাকেন। এ কর্মসূচির কারণে গুলশান ও বনানী এলাকায় যানজট সৃষ্টি হয়। 
গুলশান সেন্ট্রাল পার্কে সমন্বয় পরিষদের হাজারো নেতা-কর্মী ইতিমধ্যে জড়ো হয়েছেন। নৌমন্ত্রী শাজাহান খানও সেখানে উপস্থিত হয়েছেন। আছেন ১৪ দল নেত্রী শিরিন আক্তার। সেখান থেকে খালেদা জিয়ার কার্যালয় ঘেরাও করতে যাবেন তাঁরা।
এদিকে আজ বেলা পৌনে ১১টার দিকে আওয়ামী মহিলা লীগের অন্তত ৫০ জন নেতা-কর্মী গুলশানে খালেদা জিয়ার কার্যালয় ঘেরাও করতে যান। গুলশান ২-এর ৮৬ নম্বর সড়কের প্রবেশমুখে তাঁদের থামিয়ে দেয় পুলিশ। ওই সড়কে খালেদা জিয়ার কার্যালয় অবস্থিত। কার্যালয়ের ভেতরে অবস্থান করছেন খালেদা জিয়া।

default-image

পুলিশের বাধা পেয়ে আওয়ামী মহিলা লীগের নেতা-কর্মীরা ৮৬ নম্বর সড়কের প্রবেশমুখে অবস্থান নেন। তাঁরা সেখানে মিছিল-স্লোগান দিচ্ছেন। কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন ঢাকা মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের (উত্তর) সভাপতি তসলিমা চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক শাহিদা তারেক দীপ্তি।
পুলিশের গুলশান জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) নুরুল আলম বলেন, নিরাপত্তার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবীর গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, আইনশৃঙ্খলা বিঘ্ন হওয়ার কোনো ঘটনা ঘটলে পুলিশ তার দায়িত্ব পালন করবে। এর আগেও এ ধরনের আরও কর্মসূচি পালিত হয়েছে, সেখানে পুলিশ সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেছে।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন