default-image

নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, খালেদা জিয়া মানুষ হত্যা করে ক্ষমতায় যেতে চান। আন্দোলনের নামে তিনি মানুষ হত্যার হুকুম দিচ্ছেন। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর দেশে শান্তি ফিরে আসায় খালেদার ঘুম হারাম হয়ে গেছে।
আজ সোমবার বিকেলে সদরঘাট টার্মিনাল এলাকায় এক প্রতিবাদ সমাবেশে শাজাহান খান এসব কথা বলেন। আন্দোলনের নামে মানুষ হত্যা, যানবাহন ভাঙচুর, শিক্ষা, ব্যবসা–বাণিজ্য ও শিল্প ধ্বংসের প্রতিবাদে শ্রমিক–কর্মচারী–পেশাজীবী–মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদ এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে।
নৌপরিবহনমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত আন্দোলনের নামে সারা দেশে ৯০ জন মানুষ হত্যা করেছে, সহস্রাধিক যানবাহন পুড়িয়ে দিয়েছে। এখন হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মানুষ পোড়া গন্ধ ও আর্তনাদ। এমন হরতাল অবরোধ মানুষ চায় না।’ তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া জনতার ভয়ে কাঁটাতার দিয়ে কার্যালয় ঘিরে রেখেছে।’
খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে শাজাহান খান বলেন, ‘মানুষ হত্যার রাজনীতি বন্ধ করুন। আমরা আপনাকে অবরুদ্ধ করে রাখিনি। আপনি নিজেই জনগণের ভয়ে নিজেকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন।’ অবিলম্বে গণহত্যার অভিযোগে খালেদাকে গ্রেপ্তারের জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান শাজাহান খান।

সমাবেশে শুভাঢ্যা ইউপির চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেনের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন ঢাকা-৭ আসনের সাংসদ হাজি সেলিম, সাংসদ শিরিন আক্তার, সদস্যসচিব এম এ মালেক, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ডের ভাইস চেয়ারম্যান ইসমত কাবির, সূত্রাপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. সাইদ প্রমুখ।

সমাবেশ শেষে শ্রমিক–কর্মচারী–পেশাজীবী–মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদের আহ্বায়ক হিসেবে শাহজাহান খান বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এগুলো হলো ১১ ফেব্রুয়ারি বেলা তিনটার দিকে শাহবাগ চত্বরে বিক্ষোভ সমাবেশ। ১২ ফেব্রুয়ারি দেশব্যাপী বাস-ট্রাক টার্মিনালগুলোতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান। ১৫ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মোমবাতি প্রজ্বালন। ১৬ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টায় গুলশানে ওয়ান্ডার ল্যান্ড পার্কের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে খালেদা জিয়ার কার্যালয় অভিমুখে যাত্রা। ১৮ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টার দিকে শাপলা চত্বরে জমায়েত হয়ে জাতীয় পতাকা নিয়ে শহীদ মিনারের উদ্দেশে যাত্রা।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন