গাইবান্ধার তুলসীঘাটে যাত্রীবাহী বাসে পেট্রলবোমা হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপি। আজ শনিবার এক বিবৃতিতে দলটির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ এ ঘটনায় জড়িত লোকজনকে গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।
বিবৃতিতে দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে দাবি করা হয়, এ ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডে বিএনপি বা ২০-দল জড়িত নয়। বরং ২০–দলীয় জোটের আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে সরকারই এ ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড ঘটিয়ে বিরোধী দলের ওপর দায় চাপানো এবং ‘নিয়ন্ত্রিত’ গণমাধ্যমে তা প্রচার ও প্রকাশের অপচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। বিএনপির পক্ষ থেকে এ ঘটনায় নিহত লোকজনের আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়।
বিবৃতিতে সালাহ উদ্দিন বলেন, ‘অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি হুকুমে দলবাজ র‌্যাব, পুলিশ ও বিজিবির কতিপয় সেবাদাস কর্তাব্যক্তিরা আন্দোলনরত বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীদের বিভিন্ন নৃশংস কায়দায় ক্রসফায়ারের মাধ্যমে হত্যা করে সমগ্র দেশকে বধ্যভূমিতে পরিণত করেছে। ২০–দলীয় জোটের নেতা-কর্মীরা দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে রাজধানী ঢাকা পর্যন্ত সর্বত্র ওই সমস্ত দলবাজ পিশাচ কর্মকর্তা–কর্মচারীদের তালিকা প্রণয়ন করছে। দেশ আজ ভয়ংকর পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। জাতিকে সেই পুলিশি রিমান্ড থেকে মুক্ত করার জন্য অবিরাম সংগ্রামের কোনো বিকল্প নাই।’
প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ও তাঁর উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের বক্তব্যের সমালোচনা করে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘জয় গতকাল অস্ত্রের ভাষায় কথা বলে মুজিব বংশীয় রক্তের প্রতিধ্বনি করেছেন। রাজনীতির পাঠশালায় বাল্যশিক্ষা শ্রেণি অতিক্রম না করার আগেই ভাষণ দেওয়া শুভ লক্ষণ নয়।’

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন