বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সরকারের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আর সময় নাই, এখন উল্টাপাল্টা এদিক-সেদিক করে কথা বলে কোনো লাভ হবে না। পদত্যাগ করে একটা নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা দেন এবং তাদের অধীনে নির্বাচন কমিশন দিয়ে নির্বাচন দিয়ে একটি জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করুন। অন্যথায় পালানোর পথ খুঁজে পাবেন না।’

খালেদা জিয়ার চিকিৎসা প্রসঙ্গে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘খালেদা জিয়া অসুস্থ। চিকিৎসকেরা বারবার বলছেন, তাঁর চিকিৎসা দরকার বিদেশে। তারা (সরকার) বিভিন্ন প্রকার টালবাহানা করছে। আইন নেই, তাহলে এক-এগারোর পর শেখ হাসিনা কীভাবে কান দেখাতে আমেরিকায় গিয়েছিলেন? কীভাবে মো. নাসিম জেল থেকে সোজা সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা নিতে গিয়েছিলেন? জাসদের নেতা আ স ম আবদুর রবকে জিয়াউর রহমান কীভাবে চিকিৎসার জন্য জার্মানি পাঠিয়ে ছিলেন। আসলে আইন কোনো ব্যাপার নয়।’

বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, ‘সুতরাং আর টালবাহানা করে লাভ নেই। পদত্যাগ করেন এবং খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। অথবা আপনারা নিজেরা যাওয়ার জন্য তৈরি হন। আমরা অনেক কথা শুনতে পাই, মন্ত্রীরা নাকি পাসপোর্ট তৈরি করে ফেলেছেন। কে কোথায় যাবেন, সেই ব্যবস্থাও নাকি হয়ে গেছে। তাহলে এত দেরি করে লাভ কী, তাড়াতাড়ি যান। দেশের মানুষ রেহাই পাক, স্বস্তি পাক।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বোন শেখ রেহানার পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ দেখতে যাওয়ার প্রসঙ্গে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘কাল পদ্মা সেতুর ওপর ছবি তুলেছেন। ভালো কথা, আমাদের আপত্তি নেই। ছবি আপনারা তোলেন, অবশ্যই তুলবেন। পদ্মা সেতু নির্মাণ করেন, কিন্তু আমার সাধারণ মানুষের মোটা ভাত মোটা কাপড়ের ব্যবস্থাটা করেন। ফাইভ স্টার হাসপাতাল তৈরি হয়, কিন্তু সাধারণ মানুষ চিকিৎসাসেবার সুযোগ পায় না। শ্রমিকেরা তাঁর মজুরি পান না। কৃষক তাঁর ফসলের ন্যায্যমূল্য পান না।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘খুব বড় করে কথা বলেছিলেন, ১০ টাকা কেজি চাল খাওয়াবেন। অথচ আজ ৭০ টাকাতেও চাল পাওয়া যায় না। জ্বালানি তেলের দাম ও দ্রব্যমূল্য ঊর্ধ্বগতি মানুষের জন্য অসহনীয় হয়ে পড়েছে, অথচ তারা বলছে উন্নয়নের রোল মডেল বাংলাদেশ।’

ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন ছাত্রদলের সাবেক নেতা শামসুজ্জামান, আসাদুজ্জামান, আমানউল্লাহ আমান, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, সুলতান সালাউদ্দিন, এ বি এম মোশাররফ হোসেন, আবদুল কাদের ভূঁইয়া, হাবিবুর রশিদ, রাজীব আহসান, আকরামুল হক প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন