বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘সামরিক অফিসারদের এই ক্যু, ক্ষমতা দখল-পাল্টা দখলের খেলায় ৩ নভেম্বর আরেক উচ্চাভিলাষী সামরিক অফিসার খালেদ মোশাররফ ক্যু করে ক্ষমতা দখল করেন। খুনি খন্দকার মোশতাককে গ্রেপ্তার না করে বঙ্গবন্ধু ও চার জাতীয় নেতার খুনিদের সমঝোতার মাধ্যমে দেশ ছাড়ার সুযোগ করে দেন। এই চরম রাজনৈতিক সংকট ও অনিশ্চয়তা থেকে দেশকে বাঁচাতে ক্ষমতালিপ্সু কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সিপাহীদের সুশৃঙ্খল বিদ্রোহে কর্নেল আবু তাহেরের নেতৃত্বে জাসদ সমর্থন দিয়েছিল। কিন্তু মেজর জিয়া বিশ্বাসঘাতকতা করে জাসদ, কর্নেল তাহের ও সিপাহীদের এই প্রচেষ্টাকে ধ্বংস করে দেন।’

ইনু আরও বলেন, যাঁরা জিয়া বা খালেদের পক্ষে সাফাই গাইছেন, তাঁরা কার্যত সংবিধান লঙ্ঘন, অবৈধ ক্ষমতা দখল ও সামরিকতন্ত্রের পক্ষেই সাফাই গাইছেন। সিপাহী-জনতার অভ্যুত্থানের চেতনাকে ধারণ করতে জাসদের নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান জাসদ সভাপতি।

হাসানুল হক ইনুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, সহসভাপতি নুরুল আকতার, ফজলুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শহীদুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা শফি উদ্দিন মোল্লা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাদের চৌধুরী, মোখলেছুর রহমান, শওকত রায়হান, রোকনুজ্জামান রোকন, নইমুল আহসান, ওবায়দুর রহমান, মীর্জা মো. আনোয়ারুল হক; সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নুরুন্নবী, জাতীয় শ্রমিক জোট বাংলাদেশের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সাইফুজ্জামান, জাতীয় কৃষক জোটের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (হা-ন) কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি আহসান হাবীব প্রমুখ।

আলোচনা সভার আগে কর্নেল আবু তাহেরের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান জাসদ নেতা–কর্মীরা।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন