দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এ রোজার মাসে আমরা একটা শসা কিনতে পারি না, বেগুন কিনতে পারি না। দুঃখ হয়, যখন প্রধানমন্ত্রী আমাদের রান্নার নতুন রেসিপি দেন। তিনি বলেন যে মিষ্টিকুমড়া দিয়ে বেগুনি বানাও।’ আওয়ামী লীগ জনগণের সঙ্গে সব সময় প্রতারণা করেছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

গ্যাস চুরি হচ্ছে অভিযোগ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘সরকারের গ্যাস তোলার ইচ্ছা নেই। কারণ, আমদানি করলে অনেক বেশি পয়সা পাওয়া যায়। সরকার যে ব্যক্তিদের দিয়ে গ্যাস আমদানি করে, তাঁদের নাম তো সবাই জানেন। অনেকে তাঁকে বলেন দরবেশ। এ সেই দরবেশ যে আমাদের শেয়ার মার্কেট লুট করেছেন। এখন গ্যাস আমদানি করে আমাদের গ্যাসের সম্ভাবনাকে নষ্ট করে দিয়ে মানুষের পকেট থেকে টাকা কেটে নিয়ে যাচ্ছেন। শুধু তাই না, এই লোকটাই যখন করোনা শুরু হলো, তখন ভারত থেকে ভ্যাকসিন আনতে গিয়ে কোটি কোটি টাকা তাঁর পকেটে ঢুকিয়েছেন।’

সরকার মুষ্টিমেয় লোককে বড়লোক করার জন্য গোটা রাষ্ট্রব্যবস্থাকে তারা ব্যবহার করছে। এর বিরুদ্ধে যাঁরা প্রতিবাদ করছেন, তাঁদের তারা গ্রেপ্তার করছে বলেও অভিযোগ করেন ফখরুল ইসলাম। এ সময় তিনি মতিঝিলে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে লিফলেট বিতরণের সময় ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য ইশরাক হোসেনকে গ্রেপ্তারের নিন্দা জানান।

মিথ্যা মামলা দিয়ে সরকার আবার নতুন খেলা শুরু করেছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, সামনে নির্বাচনের ঢোল বাজচ্ছে। নির্বাচন নির্বাচন খেলা করে আবার তারা সেই নির্বাচনের বৈতরণী পার হতে চায়। সব বিরোধী দলকে মিথ্যা মামলা দিয়ে আটক করে একতরফাভাবে নির্বাচন করে নিতে চায়।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যরা এখন চুরি করছে বলেও অভিযোগ মির্জা ফখরুলের। তিনি বলেন, ‘প্রত্যেক ভিসি চুরি করেন। আবার তারা (আওয়ামী লীগ) নিজেরাই বলে, আজকাল আর ভালো লোককে উপাচার্য হিসেবে পাওয়া যায় না। কী লজ্জার কথা। আরে আপনারা ভালো না বলেই তো ভালো লোক পান না। ওখানেও তো আপনার বিভক্ত করে রেখেছেন। আওয়ামী লীগ, বিএনপি করে রেখেছেন। আওয়ামী লীগ ছাড়া আপনারা কোনো কিছু চোখে দেখেন না।’

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, ‘আমরা যাঁরা শ্রমজীবী মানুষ, নিম্ন আয়ের মানুষ, পরিশ্রম করে হালাল উপার্জন করে জীবিকা নির্বাহ করি, বউ-সন্তানকে হালাল উপার্জন খাওয়াই। আমাদের গায়ে লাগে, যখন বেগুনের দাম হয় ৬০-৮০ টাকা।’ তিনি আরও বলেন, ‘সামনে তারেক রহমানের নেতৃত্বে যে আন্দোলন-সংগ্রামের ডাক আসবে, সেটাকে সফল করার মাধ্যমে দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করব।’

এ সময় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম, জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন