বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এম এম আবদুল্লাহ আল হাদী সম্প্রতি ঘোষিত সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে শীর্ষ পদপ্রত্যাশীও ছিলেন৷ মামলার আবেদনে তিনি বলেন, ‘সিলেট থেকে ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খানের সঙ্গে দেখা করার জন্য আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আসি৷ শুক্রবার (২৯ অক্টোবর) রাত আনুমানিক ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির ডাস ক্যাফেটেরিয়ায় চা পান করছিলাম৷ এ সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের ছাত্র আমির হামজা, জগন্নাথ হলের ছাত্র পলাশ রায় ওরফে সৌরভ ও ঢাকা কলেজের ইন্টারন্যাশনাল হলের ছাত্র মো. রাব্বিসহ অজ্ঞাতনামা আট-নয়জন আমাকে ঘিরে ধরেন৷ তাঁরা আমাকে বলেন, “তুই এখানে আসছিস কেন?” কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাঁরা আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করতে থাকেন৷’

আবদুল্লাহ আল হাদী এখন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসাধীন৷ গতকাল রাতে কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের সহযোগিতায় তিনি শাহবাগ থানায় মামলার আবেদন করেন৷ তাঁর আবেদনের বিষয়ে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মওদুত হাওলাদার প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা এই ঘটনার লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন৷ তদন্তের পর এ বিষয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷

এম এম আবদুল্লাহ আল হাদী বলছেন, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলন দাবি করায় তাঁর ওপর হামলা করা হয়েছে৷ তাঁর ভাষ্য, ‘আমি ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলন চাই৷ এ নিয়ে নিয়মিতই ফেসবুকে লেখালেখি করি৷ সংগঠনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গঠনমূলক সমালোচনা করি৷ আমার অপরাধ এটাই৷’

তবে আমির হামজা মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷ তাঁর দাবি, ওই ঘটনার সময় তিনি টিএসসি এলাকায় ছিলেনই না৷ অভিযুক্ত অন্য দুজনেরও একই বক্তব্য৷

এম এম আবদুল্লাহ আল হাদী ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষণবিষয়ক উপসম্পাদক মেশকাত হোসেনের ঘনিষ্ঠ৷ মেশকাত প্রথম আলোকে বলেন, ‘গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ছাত্রলীগের বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে৷ আমরা যাঁরা সম্মেলন চাই, তাঁদের ওপর ছাত্রলীগের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান ও লেখক ভট্টাচার্য ক্ষুব্ধ৷’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মুঠোফোনে কল করেও সাড়া পাওয়া যায়নি৷

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন