বর্তমান সরকার বিচার বিভাগ ও প্রশাসনকে ধ্বংস করেছে বলে সম্মেলনে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, গণমাধ্যমকে দলীয়করণ করে দেশটাকে নিজের জমিদারি ও পৈতৃক সম্পত্তি মনে করে ধ্বংসের পথে নিয়ে গেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি মানবাধিকার সংগঠনের রিপোর্টের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার যে বিচার, সেটা রাজনৈতিক বিচার হচ্ছে। তাঁকে যে কারাগারে দেওয়া হয়েছে, সেটা রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে দেওয়া হয়েছে। এ কথা সবার জানা, নতুন করে ঢাকঢোল পিটিয়ে বলার কিছু নেই।

বক্তব্যের শেষে তরুণদের উদ্দেশে মহাসচিব বলেন, ‘আজকে দেশের মানুষ আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে। ২০২৩ সালের মধ্যে হারিয়ে যাওয়া গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে, সমৃদ্ধশালী নতুন বাংলাদেশ তৈরি করতে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে। যেখানে নির্যাতন-নিপীড়ন থাকবে না। যেখানে গণতান্ত্রিক পরিবেশ থাকবে, গণতন্ত্রের চর্চা থাকবে।’

সম্মেলনের আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রেজিনা ইসলাম। এ সময় বক্তব্য দেন দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ, জাতীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব, দিনাজপুর পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

এক যুগ পর দিনাজপুর জেলা বিএনপির সম্মেলন হচ্ছে। এর আগে সর্বশেষ সম্মেলন হয়েছিল ২০১০ সালের ২৬ জানুয়ারি। পরবর্তী সময়ে ২০১৬ সালে ২৬ আগস্ট ওই কমিটি ভেঙে যায় এবং আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এবার সম্মেলনে সভাপতি পদে ৪ জন, সাধারণ সম্পাদক পদে ২ জনসহ মোট ৭টি পদে ১৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। উপজেলা ও পৌরসভার ২০টি ইউনিটের ১ হাজার ৯১৯ জন কাউন্সিলর দলীয় কার্যালয়ে গোপন ব্যালটের মাধ্যমে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন