পতিত স্বৈরাচার ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ ২৬ বছর পর শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানালেন রাষ্ট্রীয় বাহিনীর নিরাপত্তায়, বিনা বাধায়।
শুক্রবার রাত ১২টা ১০ মিনিটে এরশাদ তাঁর স্ত্রী ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ এবং দলের নেতাদের নিয়ে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানান। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের পরেই শহীদ মিনারে যান তিনি।
অবশ্য গত বছর বিরোধীদলীয় নেতা হওয়ার পর প্রথমবার রওশন এরশাদ দলের নেতাদের নিয়ে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানান।
এরশাদবিরোধী আন্দোলনের একাধিক ছাত্রনেতা জানান, সামরিক শাসন জারি থাকা অবস্থায় নিরাপত্তা বাহিনীর ঘেরাটোপে দুই-একবার এরশাদ শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়েছিলেন। কিন্তু নিজে দল গঠন করে শহীদ মিনারে গেলে ছাত্ররা এরশাদকে প্রতিরোধ করেন এবং দলের একজন নেতা লাঞ্ছিত হন। এরপর আর শহীদ মিনারে যাননি তিনি। শহীদ মিনার এলাকায় এরশাদের প্রবেশ ঠেকাতে তখন ছাত্র সংগঠনগুলো ছিল এককাট্টা।
এরশাদ সরকারের আমলের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের সহসভাপতি সুলতান মুহাম্মদ মনসুর আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, এরশাদের শহীদ মিনারে গমনের সুযোগ করে দিয়ে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে শহীদদের রক্তের প্রতি অবমাননা করা হয়েছে। ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় ছাত্ররা এরশাদকে প্রতিরোধ করেছিলেন।
এরশাদের রাজনৈতিক ও গণমাধ্যমবিষয়ক উপদেষ্টা সুনীল শুভ রায় প্রথম আলোকে বলেন, এরশাদ ২৬ বছর পর এবার শহীদ মিনারে ফুল দিতে গেছেন। কেন এত দিন যাননি জানতে চাইলে সুনীল রায় বলেন, ‘স্যার এলাকাটি নিরাপদ মনে করতেন না।’

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন