২০-দলীয় জোটের চলমান আন্দোলনে ময়মনসিংহে বেশ কিছু নাশকতার ঘটনায় বিএনপির নেতা-কর্মীদের নামে মামলা হওয়ায় অনেক নেতা-কর্মীই গ্রেপ্তারের ভয়ে দলীয় কার্যালয়ে আসেন না। ভীতি কাটাতেই গতকাল মঙ্গলবার জেলা দক্ষিণ বিএনপির কার্যালয়ে ভূরিভোজের আয়োজন করা হয়।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, চলমাল অবরোধের ৫০তম দিন ছিল গতকাল মঙ্গলবার। গত ৫ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া লাগাতার অবরোধ ও মাঝেমধ্যে হরতালে জেলা দক্ষিণ বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা অন্য সময়ের তুলনায় বেশি সক্রিয় ছিলেন। হরতাল-অবরোধে ময়মনসিংহে পেট্রলবোমা হামলাসহ বেশ কিছু নাশকতার ঘটনা ঘটে। বিএনপি এসব নাশকতার দায় অস্বীকার করলেও পুলিশ জেলা দক্ষিণ বিএনপির কয়েক শ নেতা-কর্মীর নামে একাধিক মামলা দিয়েছে। গ্রেপ্তারের ভয়ে সম্প্রতি কিছু নেতা-কর্মী আন্দোলনে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। হরিকিশোর রায় সড়কের দক্ষিণ বিএনপির কার্যালয়েও নেতা-কর্মীদের আনাগোনা কমে গেছে।
দলীয় সূত্র জানায়, এ রকম গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নেতা-কর্মীদের ভয় ভাঙানো ও চাঙা রাখা প্রয়োজন। এ চিন্তা থেকেই গতকাল দলীয় কার্যালয়ের সামনে খিচুড়ি ও মাংস রান্না করে সবাই একসঙ্গে খাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এতে বেশ কিছুদিন পর নিজেদের মধ্যে দেখা হয়। নেতারা বলছেন, খাবারের আয়োজনের উদ্দেশ্য হলো সবাইকে একসঙ্গে করে হৃদ্যতা বাড়ানো ও মনোবল চাঙা করা।
সরেজমিনে দেখা যায়, সকাল থেকেই দলীয় কার্যালয়ের সামনে বড় বড় পাত্রে ভুনা খিচুড়ি ও গরুর মাংস রান্না হয়। বিভিন্ন এলাকার নেতা-কর্মীরা খণ্ড খণ্ডভাবে দুপুরের মধ্যে জড়ো হন। বেলা দেড়টায় কয়েক শ নেতা-কর্মী একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া করেন।
জেলা দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াহাব আকন্দ বলেন, সরকারের দমন-পীড়নে কিছুসংখ্যক নেতা-কর্মীর মধ্যে ভীতি দেখা দিয়েছিল। তাই সবাইকে একটু ভিন্ন আমেজ দেওয়া ও ভীতি কাটানোর জন্য একসঙ্গে খাওয়ার আয়োজন। এতে নেতা-কর্মীদের মনোবল অনেক চাঙা হবে। তা ছাড়া সরকারকে এ-ও বুঝিয়ে দেওয়া, বিএনপি নাশকতা করে না, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করে।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন