বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গতকাল বুধবার যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সভায় প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্যের প্রতি ইঙ্গিত করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘কী দুর্ভাগ্য আমাদের। জোর করে ক্ষমতা দখল করে যিনি দেশ চালাচ্ছেন, তিনি বলেছেন, অনেক মানবতা দেখিয়েছি, আর কত। এটা কোনো সভ্য দেশের নেতার কাছে আশা করা যায় না।’
খালেদা জিয়া তাঁর সারা জীবন গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম ও লড়াই করেছেন বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, গণতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য খালেদা জিয়া কারাগারেও গেছেন।

গত এক যুগে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর রাজনৈতিক সংস্কৃতি ধ্বংস করেছে অভিযোগ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, সত্য, সুন্দর ও ন্যায় বলতে কিছু নেই। এখানে শুধুমাত্র ভয়াবহ প্রতিহিংসা, অত্যাচার, নির্যাতন ও পেশিশক্তির রাজনীতি চলছে।

চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি সব সময় জ্ঞান ও প্রজ্ঞা দিয়ে গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করেছিলেন। জনগণের কল্যাণে কাজ করেছেন। এই ধরনের রাজনীতিক এখন একেবারে নেই বললেই চলে।
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের সঙ্গে তাঁর ৬০ বছরের সম্পর্ক। তিনি নিরেট ভদ্রলোক ছিলেন। রাজনীতিতে এ রকম সজ্জন মানুষ পাওয়া এখন খুব কঠিন।

চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ স্মৃতি পরিষদের সভাপতি কবি আবদুল হাই শিকদারের সভাপতিত্বে ও কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলামের পরিচালনায় বক্তব্য দেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির, ঢাকা উত্তরের আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান, দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন