বিজ্ঞাপন

বিক্ষোভে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব ইউনুস আহমেদ বলেন, ফিলিস্তিনে নামাজরত মানুষের ওপর ন্যাক্কারজনক হামলা চালিয়েছে, মানুষ হত্যা করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। এমন বর্বর হামলার পরও বিশ্বসম্প্রদায় চুপ আছে।

বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য দেন ইসলামী আন্দোলনের নেতা মাহবুবুর রহমান, কাজী আতাউর রহমান, ফজলে বারী মাসুদ প্রমুখ।

ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরায়েলের বিমান হামলায় নিহতের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে। ইসরায়েলের পক্ষ থেকে আক্রমণ চলমান। অন্যদিকে লেবানন থেকে ইসরায়েলের দিকে রকেট ছোড়ার দাবি করেছে তেল আবিব।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইসরায়েলি হামলায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সেখানে ১০৯ জন নিহত হন। নিহতদের মধ্যে ২৮ শিশু ও অন্তত ১১ জন নারী রয়েছেন। আর গত সোমবার ইসরায়েলি আক্রমণ শুরুর পর থেকে সেখানে আহত মানুষের সংখ্যা ৫৮০। আহতদের চিকিৎসা দিতে সেখানকার হাসপাতালগুলো হিমশিম খাচ্ছে। কারণ, করোনা রোগীর কারণে আগে থেকেই হাসপাতালগুলোর অবস্থা ছিল নাজেহাল।

আজ-জাজিরার খবরে বলা হয়, ইসরায়েলের বাহিনী তাদের বিমান হামলা ও গোলাবর্ষণ অব্যাহত রেখেছে। অন্যদিকে হামাস গাজা থেকে রকেট ছুড়েছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেন, তাঁদের বাহিনী গাজায় প্রায় এক হাজার লক্ষ্যবস্তুতে ইতিমধ্যে হামলা চালাতে সক্ষম হয়েছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, হামাসের রকেট হামলায় ইসরায়েলে সাতজন নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার গাজা সীমান্তে ইসরায়েল তাদের দুটি পদাতিক ও একটি সাঁজোয়া ইউনিট মোতায়েন করে। পাশাপাশি আরও সাত হাজার সেনাকে প্রস্তুত হতে বলা হয়েছে।
২০১৪ সালে গাজায় ইসরায়েলিদের সঙ্গে ফিলিস্তিনিদের সাত সপ্তাহের যুদ্ধের পর এবারই এটা সবচেয়ে বড় ধরনের সংঘাত।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন