তথ্যমন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন এবং তাঁর নেতৃত্বেই বাঙালিরা প্রথম জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেছিল। বিএনপি ও তার মিত্ররা স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির প্রধান পৃষ্ঠপোষক অভিযোগ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আজকের দিনে আমাদের শপথ হচ্ছে, স্বাধীনতাবিরোধী সমস্ত অপশক্তিকে নির্মূল করে বাংলাদেশকে স্বপ্নের ঠিকানায় নিয়ে যাওয়া।’ এ সময় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায়সহ দলীয় নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সোনার বাংলা গড়তে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে কাজ করার আহ্বান তথ্যসচিবের।
এদিকে সোনার বাংলা গড়তে বঙ্গবন্ধুর চেতনা ও আদর্শকে ধারণ করে সততার সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন তথ্যসচিব মো. মকবুল হোসেন। আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর তথ্য ভবন মিলনায়তনে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ আহ্বান জানান। স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর (ডিএফপি) অনুষ্ঠানটির আয়োজন করেছিল। এতে চলচ্চিত্র প্রদর্শন ছাড়াও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও ছিল।

বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে মো. মকবুল হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই বিশ্বের একমাত্র নেতা যিনি একটি জাতির মুক্তি ও রাষ্ট্র গড়ার স্বপ্ন দেখেছেন এবং দীর্ঘ দুই যুগের সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করেছেন। সে জন্যই তিনি বাঙালি জাতির জনক, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি।

ডিএফপি মহাপরিচালক স ম গোলাম কিবরিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ফারুক আহমেদ, জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক শাহিন ইসলাম, বিটিভির মহাপরিচালক মো. সোহরাব হোসেন, প্রেস ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ, প্রধান তথ্য অফিসার মো. শাহেনুর মিয়া, ফিল্ম আর্কাইভের মহাপরিচালক মো. নিজামুল কবীর, গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. জসীম উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে ‘অপরাজেয় বাংলাদেশ’ প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন এবং সংগীত ও আবৃত্তি পরিবেশন করা হয়।
বিজ্ঞপ্তি

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন