বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিএনপির ঐক্যটা বাতাস চলে যাওয়া বেলুনের মতো চুপসে গেছে উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘২০–দলীয় জোট যেটি বহু আগে তাঁরা করেছিলেন, সেই দলে এখন আট-দশটি দলের বেশি নেই। বাকি সব দল পালিয়ে গেছে। মির্জা ফখরুল সাহেবকে বলব, তাঁদের বরং নিজেদের ঘর সামলানোর দিকে মনোযোগ দিয়ে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা প্রয়োজন।’

এদিকে জাতীয় প্রেসক্লাবে মির্জা ফখরুল সাহেবদের রাজনৈতিক দলের কার্যালয়ের মতো সমাবেশ করে প্রেসক্লাবের পবিত্রতা ও মানমর্যাদা নষ্ট করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘প্রেসক্লাবে অবশ্যই সরকারের পক্ষে-বিপক্ষে বা সিভিল সোসাইটির আলোচনা সভা হতে পারে। কিন্তু নয়াপল্টনে কার্যালয়ের সামনে যেভাবে সমাবেশ হয়, প্রেসক্লাবকে সেভাবে সমাবেশস্থল বানানো সমীচীন নয়, যেটি রোববার বিএনপি করেছে বলে জেনেছি।’

কেব্‌ল অপারেটিং সিস্টেম ডিজিটাল হওয়া প্রসঙ্গে প্রশ্নের জবাবে সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে গত বৈঠকে সিদ্ধান্ত ছিল যে পয়লা অক্টোবর থেকে ক্লিন ফিড বাস্তবায়ন করা হবে, সেই একই বৈঠকে তাঁরাই বলেছিলেন যে ঢাকা ও চট্টগ্রামে কেব্‌ল অপারেটিং সিস্টেম অনেকটাই ডিজিটাল হয়ে গেছে, নভেম্বরের ১ তারিখ থেকে পুরোটাই তাঁরা ডিজিটাল করতে পারবেন। এই ডিজিটালাইজেশনের জন্য আমরা বদ্ধপরিকর। এটি হলে সম্পূর্ণ সম্প্রচারমাধ্যমই লাভবান হবে।’

দক্ষিণ এশিয়ার নিক্কি প্রতিবেদনে করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রথম স্থান অধিকার প্রসঙ্গে হাছান মাহমুদ বলেন, এই দেশে প্রধানমন্ত্রী যেভাবে করোনা নিয়ন্ত্রণ করেছেন, সেটি আসলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও প্রশংসা করেছে। এর আগে বিভিন্ন পত্রপত্রিকা, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর এই করোনা মোকাবিলার প্রশংসা হয়েছে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন