বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনে করেন, আমাদের রাজনীতির মূলমন্ত্র হচ্ছে জনগণের কল্যাণ। তাই আমাদের কাছে রাজনীতি একটি ব্রত। সেই ব্রত হচ্ছে দেশ, মানুষ ও সমাজের সেবা করা। আওয়ামী লীগের নেতা–কর্মীরা এটি অনুশীলন করে বলেই করোনা মহামারির মধ্যে সারা দেশে আমাদের পক্ষ থেকে কোটি কোটি মানুষের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। এখনো আমাদের নেতা–কর্মীরা, ইউনিয়ন পর্যায় পর্যন্ত জনপ্রতিনিধিরা সমগ্র দেশে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে ও শীতবস্ত্র বিতরণ করছে।’

বিএনপির কাছে জনগণের সমস্যা কোনো সমস্যা নয় বলে মন্তব্য করেন হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘তাদের কাছে সমস্যা হলো খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য আর তারেক রহমানের শাস্তি। আর তাদের কথা, খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য শুধু বিদেশে নিলেই ভালো হবে। অথচ এর আগেও তিনি দেশের ডাক্তারদের চিকিৎসাতেই ভালো হয়েছেন এবং এবারও তাঁর স্বাস্থ্যের উন্নতি হচ্ছে। তিনি এখন কেবিনে এসেছেন। আমি এ জন্য ডাক্তারদের ধন্যবাদ জানাই এবং প্রার্থনা করি, তিনি যেন শিগগিরই সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ফিরে যান।’

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, খালেদা জিয়াকে বিদেশ পাঠানোর ধোঁয়া তুলে বিএনপি বিভিন্ন জেলায় সমাবেশ করছে। সেই সমাবেশে নিজেদের মধ্যে মারামারি করছে। আর সেই ভয়ে মানুষ দোকানপাট, ঘরবাড়ির দরজা-জানালা বন্ধ করে রাখছে। আজকে সকালেও চট্টগ্রামে বিএনপির সমাবেশে নেতাদের ঠেলাঠেলিতে মঞ্চটাই ভেঙে পড়ে গেছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, যে রাজনৈতিক দল নিজেদের সমাবেশের শৃঙ্খলা রাখতে পারে না, সমাবেশ করতে গিয়ে মারামারি করে, মঞ্চ ভেঙে পড়ে, তাদের আতঙ্কে জনগণ দোকানপাট, ঘরবাড়ি বন্ধ করে দেয়, তারা যদি দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পায়, তাহলে মানুষের দেশ ছেড়ে পালানোর উপক্রম হবে। দেশ আবার জঙ্গিদের অভয়ারণ্য হবে। সুতরাং তাদের ব্যাপারে সাবধান থাকতে হবে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন