বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দেশের বর্তমান অবস্থা প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, এমন কোনো জায়গা নেই যেখানে দুর্নীতি নেই। এটা লুটপাটের রাজত্ব। লুটপাটের সমিতিতে পরিণত হয়েছে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা সব ধ্বংস করা হয়েছে। দেশকে বাঁচাতে হলে, গণতন্ত্রের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হলে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, জোট বাঁধতে হবে। বিভক্তি নয়, নিজেদের মধ্যে ঐক্যকে সুদৃঢ় করতে হবে। মানুষকে সঙ্গে নিয়ে গণ–আন্দোলনের মধ্যে এই সরকারকে পরাজিত করতে হবে।

দলীয়করণের অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, রাষ্ট্রের সব প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করা হয়েছে। চাকরির নিয়োগে লোক নেওয়া হচ্ছে দলীয় ভিত্তিতে। পুরো প্রশাসনকে, রাষ্ট্রকে দলীয়করণ করে ফেলেছে। তিনি আরও বলেন, মানুষ কথা বলতে পারে না, সাহস করে না। অনেকেই মামলার ভয়ে এলাকা ছাড়ছেন।

বর্তমান অবস্থা থেকে বেরিয়ে এসে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার কথা বলেন মির্জা ফখরুল। হান্নান শাহকে স্মরণ করে তিনি বলেন, হান্নান শাহ একজন সৈনিক ছিলেন। অন্যায়ের বিরুদ্ধে, স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছেন তিনি। অকুতোভয় সহকর্মী ছিলেন তিনি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, এই সরকারের অধীনে নির্বাচন সুষ্ঠু হয় না। তাদের অধীনে কোনো নির্বাচনই হয় না। বরং নির্বাচন হলে তা প্রতিহত করা হয়। গণতন্ত্রের মুক্তি ও খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য সবাইকে সক্রিয় থাকার আহ্বান জানান তিনি।

খালেদা জিয়াকে মুক্তি না দিলে গণতন্ত্রও কায়েম হবে না বলে উল্লেখ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, বুলেট দিয়ে ভোট চুরি করে এই সরকার ক্ষমতায় আছে। খালেদা জিয়া হলে পারতেন না। এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবেন না বলেও জানান।

বিএনপি পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায় আওয়ামী লীগ নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, সদর দরজ বন্ধ থকলে অন্য সব দরজা দিয়েই মানুষ ঢুকবে, বসে থাকবে না।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ওবায়দুল কাদের ষড়যন্ত্র তত্ত্বের মহামারিতে আক্রান্ত। প্রতিদিন ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে তিনি জানান। এই মহামারি থেকে তাঁকে বাঁচানোর ওষুধ নেই।

হান্নান শাহ স্মৃতি সংসদের আহ্বায়ক এ কে এম ফজলুল হক মিলনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, বিএনপির ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) কমিটির আহ্বায়ক আবদুস সালাম, হান্নান শাহর ছেলে শাহ রিয়াজুল হান্নান প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন