বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হাছান মাহমুদ বলেন, খালেদা জিয়া একটু অসুস্থ হলেই তাঁকে বিদেশে পাঠানোর জিকির তোলার কারণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। তিনি আরও বলেন, বিএনপি খালেদা জিয়াকে বিদেশের কথা বলে লন্ডনে পাঠাতে চায়, যেখানে তারেক রহমান আছেন। যাতে খালেদা জিয়া তারেক রহমানের মতো দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি হয়ে সেখান থেকে রাজনীতি করতে পারেন।

তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, পদ রক্ষার জন্য তারেক রহমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই সভা–সেমিনার করার একটা প্রতিযোগিতা দেখা দিয়েছে বিএনপির নেতাদের মধ্যে। কারণ, কে কত বেশি দৌড়াচ্ছেন, খালেদা জিয়ার জন্য অনশন করছেন, সেটি দেখাতে হবে।
‘বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে সরকারের উদ্দেশ্য রহস্যজনক’ বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর এমন মন্তব্যের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আসলে বেগম জিয়ার ব্যাপারে বিএনপির ভূমিকাটাই রহস্যজনক। সরকারের ভূমিকা অত্যন্ত স্পষ্ট। খালেদা জিয়া যাতে বাংলাদেশে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা পান, সেটি নিশ্চিত করতে সরকার বদ্ধপরিকর। বিএনপি যদি মনে করে দেশের বড় বড় চিকিৎসককে নিয়ে বেগম জিয়ার জন্য সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে, সেটিও সরকার করতে চায়।’

পার্বত্য চট্টগ্রামে হাতির মৃত্যু বেড়ে যাওয়া নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিষয়টিকে উদ্বেগজনক হিসেবে বর্ণনা করেন তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, বিভিন্ন কারণে বনভূমি কমে গেছে, রোহিঙ্গা ক্যাম্প যেখানে হয়েছে, সেখানে হাতির আবাসস্থল ছিল, সেটিও ধ্বংস হয়ে গেছে। এ বিষয়ে খুব দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে।

তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে মতবিনিময়ে সিজেএফডির নবনির্বাচিত সভাপতি মামুন আবদুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান, সাবেক সভাপতি শাহেদ সিদ্দিকী, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক শাহিন উল ইসলাম চৌধুরী, অনুপ খাস্তগীর, মেজবাহ উদ্দীন চৌধুরী, সাঈফ ইসলাম, মুজিব মাসুদ, সায়েম টিপু, রিশাদ হুদা, মোমেনা আক্তার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন