বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান বলেন, ‘আওয়ামী লীগের রাজনীতি দেশের গণমানুষের জন্য রাজনীতি। আমাদের নেত্রী দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পাওয়ার পর দেশের সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের, হকার, শ্রমিক, কৃষকদের যাতে কষ্ট না হয়, সে জন্য নানা ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। আমরা মনে করি, খেটে খাওয়া মানুষ হচ্ছে আওয়ামী লীগের প্রাণ। তারা যুগ যুগ ধরে সমর্থন দিয়ে আওয়ামী লীগকে বাঁচিয়ে রেখেছে, টিকিয়ে রেখেছে, আওয়ামী লীগ দেশের বৃহত্তর দলে রূপান্তরিত হয়েছে, গণমানুষের দলে রূপান্তরিত হয়েছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘যারা ড্রয়িং রুমের মধ্যে বসে থাকে আর সেখান থেকে নেতৃত্ব দেয় তারা আওয়ামী লীগের প্রাণ নয়, আওয়ামী লীগের প্রাণ হচ্ছে মাঠের নেতা কর্মীরা। আমাদের নেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার রাজনীতি গণমানুষের জন্য, হকার-কৃষক-শ্রমিক ভাইদের জন্য।’

‘আমি দেখতে চাই একটি সম্মেলনের মাধ্যমে আওয়ামী হকার্স লীগের একটি নতুন কমিটি হবে, তারপর সারা দেশে আপনারা শাখা কমিটি করবেন, হকার্স লীগ একটি মজবুত লীগ হবে’ বলেন ড. হাছান।

তথ্যমন্ত্রী এ সময় বিকল্প ব্যবস্থা না করে হকারদের উচ্ছেদ করা উচিত নয় উল্লেখ করে বলেন, হকারদের বিকল্প ব্যবস্থা করার জন্য শহর কর্তৃপক্ষের কাছে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা আছে। বিদেশে যেমন সাপ্তাহিক বাজার বসে, তেমনি প্রতি ওয়ার্ডে যদি সাপ্তাহিক বাজার বসতো তাহলে হকারদের জন্য সুবিধা হতো। দেশের অন্যান্য বড় শহরগুলোতেও সাপ্তাহিক বাজার বসানো যায়। তাহলে হকারেরা সেখানে গিয়ে বিক্রি করতে পারে এবং তাদের সংসারটা চলে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অগ্রগতির কথা উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘আজকে পাকিস্তান আমাদের দিকে তাকিয়ে আক্ষেপ করে কারণ পাকিস্তানের চেয়ে আমরা এখন অনেক এগিয়ে গেছি। ভারতে আমাদের অগ্রগতি নিয়ে আলোচনার ঝড় উঠে টেলিভিশনের পর্দা, রাজনীতির মাঠে, বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি নিয়ে আলোচনার ঝড় উঠে। এটি শেখ হাসিনার কারণেই সম্ভবপর হয়েছে।’

আওয়ামী হকার্স লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক এস এম জাকারিয়া হানিফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সংগঠনের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক হাজি মো. আনোয়ার হোসেন, তসলিম আহমেদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. জাহেদ আলীসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন