বিজ্ঞাপন

ফরিদপুর যুবলীগের ২১ সদস্যবিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির সদস্যরা নিক্সন চৌধুরীকে ফুলের শুভেচ্ছা জানাতে গেলে নবগঠিত কমিটির সদস্যদের উদ্দেশে এ কথা বলেন তিনি। গত বুধবার রাতে নিক্সন চৌধুরীর ভাঙ্গার বাসায় দেখা করতে যান নেতারা।


নিক্সন চৌধুরী বলেন, ১৯৭২ সালে যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেছেন শেখ ফজলুল হক মনি। বর্তমানে যুবলীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন শেখ ফজলুল হক মনির ছেলে শেখ ফজলে শামস পরশ। যুবলীগের প্রতি দরদ, আবেগ আর ভালোবাসা পরশের চাইতে আর কারও বেশি হওয়ার কথা নয়।

সাংসদ বলেন, যুবলীগের আগের নেতারা দুর্নীতি ও ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে জড়িত ছিলেন বলেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সে কমিটি ভেঙে দিয়ে পরশকে নতুন কমিটির দায়িত্ব দিয়েছেন। এ কমিটি দেড় বছর পার করেছে। করোনার এই সংকটজনক সময়ে সারা দেশে যুবলীগের কোনো কমিটি না হলেও গত ৫ মে যুবলীগের ফরিদপুর আহ্বায়ক কমিটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সাংসদ নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘দলের দুর্দিনে যাঁরা নেতৃত্ব দিয়েছেন, তাঁদের, তাঁদের সন্তান, আত্মীয়স্বজন ও মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের নিয়ে যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে হবে। এ কাজে কোনো বড় নেতা, সাংসদ, মন্ত্রীর সুপারিশ রাখবেন না। মনে রাখবেন চামচামি করে নেতা হওয়া যায় না।’ তিনি বলেন, ‘কারও কোনো সুপারিশ আপনারা শুনবেন না। আমার তিন উপজেলায় আমার রাজনীতির বাইরে, আমার অপছন্দের কাউকে যুবলীগে স্থান দিলে আমি তাতে বাধা দেব না।’

সভায় বক্তব্য দেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থবিষয়ক সম্পাদক সাহাদাত হোসেন নতুন আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক জিয়াউল হাসান, দুই যুগ্ম আহ্বায়ক মেহেদী হাসান শামীম তালুকদার ও খান মো. শাহ সুলতান রাহাত।


৫ মে রাতে যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হাসান খান নিখিল স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে ২১ সদস্যবিশিষ্ট এ আহ্বায়ক কমিটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন