বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আসামের দরং জেলার মুসলমানদের কাছে সব ধরনের সরকারি নথিপত্র, দলিল-প্রমাণ ও পরিচয়পত্র থাকা সত্ত্বেও শুধু মন্দিরের পরিধি বাড়ানোর অজুহাতে কিছুদিন ধরে সেখানে দফায় দফায় উচ্ছেদ অভিযান চালানো হচ্ছে। ভেঙে দেওয়া হয়েছে ঘরবাড়ি ও মসজিদ। ভারতে যেভাবে মুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হচ্ছে, তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। ভারতের স্বাধীনতাসহ সব বিষয়ে মুসলিমদের ঐতিহ্য ও অবদানের ইতিহাস কারও অজানা নয়।’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দুর তথ্য অনুযায়ী, আসামের উত্তরাঞ্চলীয় দরং জেলায় প্রায় সাড়ে চার হাজার বিঘা সরকারি জমি ‘অবৈধভাবে’ দখল করে সেখানে বসতি গেড়েছেন বাংলাভাষী মুসলমানরা। সেখান থেকে তাঁদের উচ্ছেদ করতে চাইছে কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার পুলিশ উদ্ধার অভিযানে গেলে স্থানীয় ব্যক্তিদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ২ জন নিহত ও অন্তত ১১ জন আহত হন।

হেফাজতে ইসলামের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আমাদের দাবি, অনতিবিলম্বে আসামের মুসলমানদের ওপর দমন–পীড়ন বন্ধ করুন এবং মুসলমানদের ভিটেবাড়ি ফিরিয়ে দিন। এই জঘন্য ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করুন। ভারতীয় মুসলমানদের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে এবং তারা যেন সম্পূর্ণ নিরাপত্তার সঙ্গে নির্ভয়ে বসবাস করতে পারে, সে ব্যবস্থা করতে হবে।’

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন