বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আলোচনা সভায় পুলিশের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করেন বিএনপির মহাসচিব। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য আওয়ামী লীগ সরকার সব প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে দিয়েছে। আপনারা দেখছেন, পুলিশ কিছুদিন ধরে যে কাজটা করছে, ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী ও নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীদের মধ্যে যে সংঘর্ষ হলো, দুজন প্রাণ দিলেন। এটাতে পুলিশ কী করল? প্রথমে বিএনপি নেতাদের নামে মামলা দিয়ে একজনকে গ্রেপ্তার করে তিন দিনের রিমান্ডে পাঠাল। অথচ প্রত্যেক মিডিয়ার প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে, এখানে মূলত দায়ী হচ্ছে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা, যারা অস্ত্র হাতে নিয়ে হামলা করেছে। দুজনকে হত্যা করেছে।’

কলাবাগান এলাকার তেঁতুলতলা মাঠে থানা ভবন নির্মাণ করতে প্রাচীর নির্মাণের কাজ করছে পুলিশ। এ নিয়ে স্থানীয় মানুষের আন্দোলন ও বিশিষ্ট নাগরিকদের তীব্র আপত্তির পরও পুলিশ তাদের অবস্থান থেকে এখনো সরে আসেনি। এ প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বাচ্চাদের ফুটবল খেলার মাঠ দখল করে থানা বানাচ্ছে। এ রকম অসংখ্য ঘটনা সারা দেশে ঘটছে। মানুষের নিরাপত্তা দেওয়া দূরের কথা, কী করে তাদের আরও বেশি হয়রানি করা যায়, সেই ঘটনা ঘটছে।’

আওয়ামী লীগ পুরোপুরিভাবে জনগণের বিরুদ্ধে, রাজনীতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপির মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার একদিকে ইতিহাস বিকৃত করছে, আরেক দিকে অর্থনীতিকে পুরোপুরিভাবে ধ্বংস করে পরনির্ভরশীল করে দিচ্ছে। আবার রাজনীতিকে পুরোপুরিভাবে একটা একদলীয় শাসনব্যবস্থার মধ্যে নিয়ে গণতান্ত্রিক চেতনা সরিয়ে দিচ্ছে। এ বিষয়গুলো সরকার পরিকল্পিতভাবে করছে।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, আজকে সবকিছু এক জায়গায় কেন্দ্রীভূত করা হয়েছে। আজকে শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকসহ অনেক নেতাকেই স্মরণ করা হয় না।

আলোচনা সভায় অংশ নেন শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের নাতনি ফাহসিনা হক। তিনি বলেন, ‘আমরা বিএনপির রাজনীতির মাধ্যমে দেশের সেবা করতে চাই।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সৈয়দ এমরান সালেহ, ইশরাক হোসেন, এম জহির উদ্দিন স্বপন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন শেরে-বাংলা জাতীয় যুব সংস্কৃতি ফাউন্ডেশনের সভাপতি মো. আখতারুল আলম।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন