এনপিপির সঙ্গে রোববার বিএনপি কয়েকটি বিষয়ে একমত হয়েছে জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এর মধ্যে প্রধান হচ্ছে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি, সেই সঙ্গে রাজনৈতিক কারণে বন্দী সব রাজনৈতিক নেতার মুক্তি। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দেশের প্রায় ৩৫ লক্ষ মানুষের বিরুদ্ধে যে মিথ্যা মামলা আছে, সেই মামলাগুলো প্রত্যাহারের দাবিতে আমরা একমত হয়েছি।’

ফখরুল বলেন, ‘আমরা একমত হয়েছি যে এই সরকারের ক্ষমতায় থাকার আর কোনো অধিকার নেই। তাদের অবিলম্বে পদত্যাগ করতে হবে, সংসদ বিলুপ্ত করতে হবে, নির্বাচনকালীন একটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে, সেই নির্বাচনকালীন সরকারের অধীন যে ইসি গঠিত হবে, ওই নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে একটি নির্বাচন করতে হবে। আর সেই নির্বাচনে যারা নির্বাচিত হবে, তারা সংসদ গঠন করবে এবং সেই সংসদের মধ্য দিয়ে জনগণের একটি সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে।’

ফখরুল আরও বলেন, ‘এই দাবিগুলোকে আমরা সামনে নিয়ে যুগপৎভাবে যার যার অবস্থান থেকে আন্দোলন শুরু করব।’

ফরিদুজ্জামান ফরহাদ বলেন, ‘আমরা যুগপৎ আন্দোলন করব এবং বর্তমান সরকার পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আমরা আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে রাজপথে থাকব।’
সংলাপে বিএনপির পক্ষে মির্জা ফখরুলের সঙ্গে দলটির স্থায়ী কমিটি সদস্য এবং ২০–দলীয় জোট সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান উপস্থিত ছিলেন।

এনপিপির পক্ষে ফরিদুজ্জামান ফরহাদের সঙ্গে সংলাপে মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য আ হ ম জহির হোসেন হাকিম, নবী চৌধুরী, শরিফ মনির হোসেন, বেলাল আহমেদ, যুগ্ম মহাসচিব ফরিদউদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুজ্জামান, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক মুফতি মাওলানা হাসিবুর রহমান, ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক মো. আবুল কালাম আজাদ উপস্থিত ছিলেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন