default-image

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের বলেছেন, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণা করে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ দেশের নব্বই ভাগ মানুষের মনের আশা পূরণ করেছেন। এরশাদ সংবিধানে যেভাবে রাষ্ট্রধর্ম ঘোষণা করেছেন, তা অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রব্যবস্থার সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয়।

জাতীয় ওলামা পার্টির ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন জি এম কাদের। আজ রোববার দুপুরে গুলশান ১ সার্কেলের ইমানুয়েলস মিলনায়তনে এই সম্মেলন হয়।

জি এম কাদের বলেন, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণা করে পল্লিবন্ধু দেশের সব ধর্মের মানুষের অধিকার নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, পল্লিবন্ধু মসজিদের উন্নয়নে যেমন বরাদ্দ দিয়েছেন, তেমনিভাবে মন্দির, গির্জা ও প্যাগোডাতে বরাদ্দ দিয়েছেন।

আজকের অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় ওলামা পার্টির আহ্বায়ক কারি হাবিবুল্লাহ বেলালী।

জি এম কাদের আরও বলেন, নবম সংসদে সংবিধানের অনেক সংশোধন হয়েছে, কিন্তু রাষ্ট্রধর্ম বিষয়ে কোনো সংশোধনী বা পরিবর্তন আনতে হয়নি। যারা অন্যায় ও অবিচার করে, তারাই ইসলাম ও মুসলিমদের ভয় করে। তাই বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে মুসলমানদের ওপর আঘাত আসছে।

জি এম কাদের বলেন, জাতীয় পার্টি রাষ্ট্রক্ষমতায় গেলে মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিনদের ভাতা দেওয়ার ব্যবস্থা করে এরশাদের স্বপ্ন পূরণ করবে। দেশের ওলামাদের ঐক্যবদ্ধ হতে আহ্বান জানান জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান। যাতে জাতীয় পার্টি আগামী নির্বাচনে দেশের দায়িত্ব নিতে পারে।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান বলেন, ইসলাম ছাড়া হতদরিদ্র মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন নিশ্চিত করা সম্ভব নয়।

মসিউর রহমান বলেন, ইসলামি মূল্যবোধে বিশ্বাসী মানুষগুলো এক হলে আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি সরকার গঠন করতে সমর্থ হবে।

আজকের সম্মেলনে বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এস এম ফয়সল চিশতী, ওলামা পার্টির মাওলানা শায়খুল হাদিস আবুল কাইয়ুম আজাহারী, মাওলানা মোহাম্মদ এ বি এম মোস্তফা কামাল চৌধুরী, মাওলানা মোহাম্মদ মুফতি মাহমুদি প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায়, মীর আবদুস সবুর, সাইফুদ্দিন আহমেদ, আলমগীর সিকদার প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0