বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

খালেকুজ্জামান বলেন, ‘এর আগে দুইবার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপে অংশ নিয়েছি। এ ছাড়া নির্বাচন কমিশনের সঙ্গেও সংলাপে গিয়েছি আমরা। ওই সব সংলাপে দলের পক্ষ থেকে যে প্রস্তাবগুলো দিয়েছিলাম, তা এখনও বাস্তবায়ন হয়নি। এ কারণে সংলাপে গিয়ে কোনো লাভ হবে বলে মনে হয় না।’

খালেকুজ্জামান বলেন, ‘আমরা যে প্রস্তাবগুলো দিয়েছিলাম, সেগুলো এখনো যুক্তিযুক্ত। আমরা রাষ্ট্রপতির দপ্তরে চিঠি দিয়ে বলেছি, শুধু শুধু সংলাপে গিয়ে আমরা রাষ্ট্রপতির মূল্যবান সময় নষ্ট করতে চাই না। তিনি চাইলে আমাদের আগের সেই প্রস্তাবগুলোই বাস্তবায়ন করতে পারেন।’

বাসদের বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘সংলাপে অংশগ্রহণের জন্য বঙ্গভবন থেকে ১৯ ডিসেম্বর পাঠানো এক চিঠিতে রোববার (২৬ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৬টায় বঙ্গভবনে বাসদকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। ওই দিন দলের সাতজন প্রতিনিধি নিয়ে মতবিনিময়ে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণপত্রে উল্লেখ করা হয়।’

বাসদের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘দেশের বর্তমান রাজনৈতিক সংকটজনক পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রপতির উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে বাসদের পক্ষ থেকে বলা হয়, ২০১২ সালে এবং ২০১৭ সালে তৎকালীন ও বর্তমান রাষ্ট্রপতির সংলাপে অংশ নিয়ে দলের পক্ষ থেকে যে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, তার কোনো বাস্তবায়ন দেখা যায়নি। ফলে এবারের সংলাপেও অতীতের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটিয়ে আগের প্রস্তাবনাগুলোকে প্রাসঙ্গিক উল্লেখ করে তা বাস্তবায়নে রাষ্ট্রপতির উদ্যোগী ভূমিকা নেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।’

নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতি দেশের নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ শুরু করেছেন। এর আগে জাতীয় পার্টি ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সঙ্গে সংলাপ হয়েছে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন