default-image

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ দলটির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের ১২০ জন নেতা–কর্মীর নামে মামলা করেছে পুলিশ। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের রাষ্ট্রীয় খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল থেকে পুলিশের ওপর হামলা ও মশাল জ্বালিয়ে অগ্নিসংযোগের অভিযোগে গতকাল বুধবার রাতে এ মামলা হয়। মামলার এজাহারে ২৯ জনের নাম দেওয়া হয়েছে। বাকিদের অজ্ঞাত হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

রিজভী ছাড়াও আসামিদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরী, কেন্দ্রীয় যুব দলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, যুব দলের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহসভাপতি শরিফ হোসেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের সভাপতি মেহেদী হাসান তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন

পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার সাজ্জাদুর রহমান আজ বৃহস্পতিবার প্রথম আলোকে বলেন, বুধবার সন্ধ্যায় বিএনপি ও দলটির অঙ্গসংগঠনের নেতা–কর্মীরা মশাল মিছিল বের করেন। মিছিল থেকে পুলিশের ওপর হামলা ও রাস্তায় মশাল জ্বালিয়ে অগ্নিসংযোগ করা হয়। তাঁরা পুলিশের কাছ থেকে এক আসামিকে ছিনিয়ে নেন। তাঁদের বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা ছিল।

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, বুধবার সন্ধ্যার মিছিল থেকে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুব দলের সহসভাপতি শরিফ হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই দিন রাতে তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বিএনপির এই নেতা–কর্মীদের বিরুদ্ধে নাশকতা ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে মামলা করা হয়। গ্রেপ্তার শরিফ হোসেনকে গতকাল আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) ৭২তম সভায় গত মঙ্গলবার জিয়াউর রহমানের রাষ্ট্রীয় খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর প্রতিবাদে পরদিন সন্ধ্যায় শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের সামনে একটি বিক্ষোভ ও মশাল মিছিল বের করেন বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা–কর্মীরা। পুলিশ মিছিলে বাধা দেয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এ সময় পুলিশের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় আজিজ সুপার মার্কেটের সামনের সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অগ্নিসংযোগ করা হয়।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন