লুটপাটের জন্যই গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি: রিজভী

বিজ্ঞাপন
default-image

গ্যাসের দাম বৃদ্ধির তীব্র সমালোচনা করে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ক্ষমতাসীনদের আত্মীয়স্বজনদের লুটপাটের জন্যই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করেছে সরকার। গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি পেলে বিদ্যুতের দামও বাড়বে। বাড়বে কল কারখানার উৎপাদন খরচও।

আজ সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন রিজভী। সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন হয়।

গতকাল রোববার বিকেলে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির ঘোষণা দেয়। আবাসিক, বাণিজ্যিকসহ সব ধরনের গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে বিইআরসি। গড়ে গ্যাসের দাম বেড়েছে ৩২ দশমিক ৮০ শতাংশ। মূল্যবৃদ্ধির এই সিদ্ধান্ত আজ ১ জুলাই থেকে কার্যকর হবে।

রান্নাঘরে যাদের গ্যাসের চুলা একটি, তারা এত দিন মাসে বিল দিতেন ৭৫০ টাকা। এখন থেকে গ্যাস বিল বাবদ মাসে তাদের ব্যয় হবে ৯২৫ টাকা। যাদের বাসায় দুই চুলা, তারা এত দিন বিল দিত ৮০০ টাকা। এখন দিতে হবে ৯৭৫ টাকা।

আজ রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগের ১০ বছরে গ্যাসের মূল্য বাড়িয়েছে ছয়বার। গ্যাসের দাম বাড়ানোতে অবশ্যই জনজীবনে বিরূপ প্রভাব পড়বে। যারা সীমিত আয়ের লোক তাদের ওপর এর প্রভাব বেশি পড়বে। গ্যাসের দাম বাড়ানোর কারণে সব ধরনের শিল্প প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত এবং বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হবে। ব্যবসা করার খরচ বেড়ে যাবে। ফলে শিল্পপ্রতিষ্ঠানের ওপর চাপ বাড়বে। ফলে মূল্যস্ফীতিও বাড়বে।

বিএনপি নেতা রিজভীর আশঙ্কা, গ্যাসের দাম বাড়ানোর কারণে দেশের গার্মেন্টস খাত মারাত্মক চাপে পড়ে যাবে। গ্যাসের এই দাম বৃদ্ধির কারণে পরিবহনের ভাড়া বেড়ে যাবে। ব্যবসায়ীদের পরিবহন খরচ বেড়ে যাবে। জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যাবে। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যসহ সব ধরনের পণ্যের দাম বাড়বে।

রিজভী বলেন, গ্যাসের দাম বাড়ার কারণে স্বল্প আয়ের মানুষকেই বেশি ভুগতে হবে। সাধারণ মানুষের জীবনে আরও দুর্ভোগ নেমে আনবে। এ সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ গণবিরোধী ও গরিব মারার সিদ্ধান্ত।

গ্যাস দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি করেন রিজভী।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন