বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ সোমবার দুপুরে নিজ মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের নবনির্বাচিত কমিটির সঙ্গে বৈঠক শেষে এসব কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী। এ সময় তথ্য ও সম্প্রচারসচিব মো. মকবুল হোসেন, প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. নিজামুল হক, সচিব মো. শাহ আলম উপস্থিতি ছিলেন। এ ছাড়া বৈঠকে মো. শফিউল ইসলাম, ইকবাল সোবহান চৌধুরী, সাইফুল আলম, মনজুরুল আহসান বুলবুল, মুজাফফর হোসেন, সেবীকা রানী ও ফেরদৌস জামান অংশ নেন।

এ সময় তথ্যমন্ত্রী বলেন, পদ্মা সেতু নিয়ে দেশে-বিদেশে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। খালেদা জিয়াই বলেছেন, আওয়ামী লীগ কখনো পদ্মা সেতু করতে পারবে না। বিএনপির নেতারাও তাতে সুর মিলিয়েছেন। খালেদা জিয়া আরও বলেছিলেন, পদ্মা সেতু যদি করেও তাহলে এটা জোড়াতালি দিয়ে একটা সেতু হবে। তবে বাস্তবিক পৃথিবীর সব সেতু জোড়া দিয়েই হয়। তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর এপার থেকে ওপারে এবং ওপার থেকে এপারে এসেছেন। এখন বিএনপি নেতারা কী বলবেন? তাঁরা কখন এ পদ্মা সেতু দিয়ে গাড়ি চালিয়ে যাবেন, সেই অপেক্ষায় আছি। কারণ, তাঁরা এ সেতু নিয়ে অনেক বিরূপ মন্তব্য করেছেন।’

পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন প্রসঙ্গে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিশ্বব্যাংকের যাঁরা সেতু থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে পরে আবার অর্থায়নের প্রস্তাব দিয়েছিলেন, তা প্রধানমন্ত্রী প্রত্যাখ্যান করেছেন। আশা করছি, তাঁরাও দেখবেন, একটি দেশ তাদের প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে কীভাবে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রকে ছিন্নভিন্ন করে এমন বিশাল সেতু নির্মাণ করতে পারে। যারা পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করেছিল, তারা নিশ্চয়ই এখন এ সেতু দেখে লজ্জিত হবে।’

প্রেস কাউন্সিল প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রেস কাউন্সিল আমাদের দেশে মুক্তমতচর্চা, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কাজ করছে। আমরা এটিকে আরও শক্তিশালী করার উদ্যোগ ইতিমধ্যেই গ্রহণ করেছি।’ বাংলাদেশে যেভাবে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা আছে, সেটি অনেক উন্নয়নশীল দেশে নেই বলেও মন্তব্য করেন তথ্যমন্ত্রী।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন