চলমান সমস্যার সমাধান অন্য কেউ করতে পারবে না, রাজনীতিবিদদেরই সমস্যা সমাধান করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেছেন, ‘এ অবস্থা নিরসনে একটা পথ বের করতেই হবে, যাতে দেশে শান্তি ফিরে আসে।’ তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘এখন দেশে যা চলছে তা কি গণতন্ত্র?’

আজ বৃহস্পতিবার তিন দিনের সফরে এসে দুপুরে রংপুর সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এরশাদ এসব কথা বলেন।
বিরাজমান সমস্যা সমাধানে সুশীল সমাজের উদ্যোগের বিরোধিতা করে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, ‘এ সমস্যার সমাধান অন্য কেউ করতে পারবে না। রাজনীতিবিদদেরকেই এ সমস্যা সমাধান করতে হবে।’
প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত বলেন, ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য হরতাল-অবরোধ দিয়ে দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করা হচ্ছে। এভাবে দেশ বেশি দিন চলতে পারে না। এর একটা পরিবর্তন দরকার। তিনি আরও বলেন, রাজনৈতিক দলগুলো ভোটের সময় জনগণের কাছে গিয়ে ভোট ভিক্ষা চায়। আর জনগণ এখন রাজনীতিবিদদের কাছে হাতজোড় করে। জনগণ হরতাল-অবরোধ আর মানুষ পোড়ানোর রাজনীতি দেখতে চায় না।
এরশাদ বলেন, ‘আমি ক্ষমতায় থাকাকালে নূর হোসেন গুলিতে নিহত হয়েছিল, আমি ক্ষমতা ছেড়ে দিই। কিন্তু এরপর আমাকে নির্বাচন করতে দেওয়া হয়নি। জেলে ঢোকানো হয়েছে।’ তিনি হরতাল-অবরোধকারীদের উদ্দেশে বলেন, ‘পরীক্ষায় সময় তা পরিহার করা উচিত। তা না হলে নতুন প্রজন্ম আমাদের ক্ষমা করবে না। তাদের আন্দোলন জনগণের কল্যাণের জন্য নয়, নিজেদের স্বার্থের জন্য। সে কারণে তাদের আন্দোলনের নামে সহিংসতা আর অরাজকতা জনগণ গ্রহণ করেনি।’
দেশে জরুরি অবস্থা আসছে কি না, সাংবাদিকদের এমন এক প্রশ্নের উত্তরে এরশাদ বলেন, ‘দেশে জরুরি অবস্থা জারির কোনো সম্ভাবনা নেই। সে পরিস্থিতি এখনো সৃষ্টি হয়নি।’
মতবিনিময়ের সময় জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন, মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন