বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাম্প্রদায়িক অপশক্তির হাতে বা তাদের যাঁরা লালন করেন, তাঁদের হাতে ক্ষমতা যেন না যায়, সে জন্য সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, দেশ অনেক এগিয়ে যাচ্ছে। এটি অনেকের পছন্দ নয়। দেশের এগিয়ে যেতে হলে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা প্রয়োজন, সাম্প্রদায়িক ও রাজনৈতিক অপশক্তির হাত থেকে সমাজকে রক্ষা করা প্রয়োজন।

সাংবাদিক সংগঠনগুলোকে সাংবাদিকদের স্বার্থ সংরক্ষণ ও অধিকার আদায়ে কাজ করার পরামর্শ দিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ওয়েজ বোর্ডে সাংবাদিকদের জন্য গ্রুপ ইনস্যুরেন্সের কথা বলা আছে, কিন্তু বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠান তা করেনি। এর জন্য খুব বেশি টাকার প্রয়োজন নেই। সামর্থ্যের অভাব নেই, তবে উদ্যোগের অভাব আছে। এর জন্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাগাদা দেওয়া প্রয়োজন।

আইনমন্ত্রী গণমাধ্যমকর্মী আইনে স্বাক্ষর করেছেন জানিয়ে হাছান মাহমুদ আশা করেন, আগামী শীতকালীন অধিবেশনে আইনটি সংসদে উঠবে। তিনি আরও বলেন, সাংবাদিক হওয়ার জন্য কিছু মাপকাঠি প্রয়োজন। জাতীয় প্রেস কাউন্সিলে একটি বৈঠক হয়েছে, সেখানে এ বিষয়ে তারা একটি খসড়া করতে পারে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, যে কেউ সাংবাদিক পরিচয় দিতে পারে। আসল সাংবাদিকের চেয়ে নকল সাংবাদিক উপজেলা পর্যায়ে বেড়ে গেছে। সাংবাদিক স্টিকার লাগিয়ে ঘোরেন অনেকে। অনেকে এমন সব কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হন, তাতে সাধারণ মানুষের মধ্যে সাংবাদিকদের সম্পর্কে বিরূপ মনোভাব তৈরি হয়। এ নিয়ে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।
দেশের উন্নয়নের ধারা ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে সাংবাদিকদেরও দায়িত্ব আছে বলে অনুষ্ঠানে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

এ ছাড়া জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, সমাজে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে সাংবাদিক সংগঠনগুলোরও দায়িত্ব আছে। সংগঠনগুলো পেশাগত ও বুদ্ধিবৃত্তিক অবদান রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন যুগান্তর সম্পাদক ও প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সাইফুল আলম, প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী, বাসসের সমীর কান্তি বড়ুয়া, চট্টগ্রাম বিভাগ সাংবাদিক ফোরামের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তফা কামাল, মহাসচিব শাহীন চৌধুরী প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন