বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব বলেন, সরকার খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে দিচ্ছে না। কারণ, এতে তাদের কাঁটা সরে যায়।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, বিএনপির ছয় শর বেশি নেতা-কর্মীকে গুম করা হয়েছে। হাজারের বেশি নেতা-কর্মীকে হত্যা করা হয়েছে।

বিএনপির মহাসচিব আরও বলেন, রফিকুল ইসলাম জনপ্রিয় নেতা বলে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মিথ্যা মামলা, আক্রমণ করে লাভ নেই। দেশের মানুষ জেগে উঠেছে।

মির্জা ফখরুলের ভাষ্য, এই সরকার রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে ক্ষমতায় বসে আছে। বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার ছাড়া তাদের অন্য কোনো উপায় নেই। জনগণের সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো সম্পর্ক নেই। আওয়ামী লীগ মিথ্যাবাদী, প্রতারক দল।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগ ১০ টাকা কেজি দরে চাল, বিনা পয়সায় সার, ঘরে ঘরে চাকরি দেওয়ার কথা বলেছিল। এখন চালের কেজি ৭০ টাকা। সার ১০০ টাকার বেশি। আওয়ামী লীগের সিল ছাড়া চাকরি পাওয়া যায় না। আবার টাকাও দিতে হয়।

default-image

বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আনেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, ভালোভাবে বিদায় নিতে হলে সরকারকে দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে। নয়তো পিঠের চামড়া থাকবে না। আন্দোলন ছাড়া বিকল্প নেই। এই সরকারকে পরাজিত করে নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ সম্প্রতি বলেছেন, বিএনপির নেতারা দুই কান কাটা নেতা। তাঁদের কোনো লজ্জা-শরম নেই। তাঁর এই বক্তব্যের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আরে আমাদের যদি কান কাটা হয়, আপনাদের তো দুই কান কাটা। আপনারা রাস্তা দিয়ে চলতে সাহস পান না। দুই কান কাটার লজ্জা–শরম কিচ্ছু থাকে না। এই ভাবে টিকে থাকা যাবে না।’

সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, রফিকুল ইসলামের গ্রেপ্তারে কেউ ভয় পায়নি। মানুষের মিছিল নেমেছে। এই মিছিল সরকারের পতন ঘটাবে।

সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আবদুস সালাম বলেন, সরকার খালেদা জিয়া, তারেক রহমান ও বিএনপির নেতা-কর্মীদের ভয় পায়। রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে আন্দোলন দমানো যাবে না।

সকাল ১০টার দিকে বিএনপির এই সমাবেশ শুরু হয়। সমাবেশে দলটির কয়েক শ নেতা-কর্মী অংশ নেন। সমাবেশের কারণে প্রেসক্লাবের সামনের দিকের সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অন্য পাশেও যানজট তৈরি হয়।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন