বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি ও জামাত যদি ৫০ বছর ধরে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তিকে নিয়ে নেতিবাচক, প্রতিহিংসাপরায়ণ, পেট্রলবোমা আর সন্ত্রাস–আশ্রয়ী অপরাজনীতি করেছে। যদি তারা ষড়যন্ত্র না করত, দেশের বিরুদ্ধে বিদেশে অপপ্রচার না চালাত, তাহলে দেশ আরও এগিয়ে যেত।

শুধু এখনই নয়, বিএনপি জন্মলগ্ন থেকেই স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রধান পৃষ্ঠপোষক বলে মন্তব্য করেন হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান দেশে আর কোনো মানুষ খুঁজে পাননি, শাহ আজিজুর রহমানকে প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছিলেন, যিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের প্রতিনিধিদলের উপপ্রধান হিসেবে জাতিসংঘে গিয়ে বলেছিলেন, ‘পূর্বপাকিস্তানে কোনো যুদ্ধ হচ্ছে না, কোনো গণহত্যা হচ্ছে না, সেখানে ভারতীয় কিছু চর গন্ডগোল করছেমাত্র।’

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে ডিএফপি মহাপরিচালক স ম গোলাম কিবরিয়া বলেন, জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর একটি নিবিড় সম্পর্কে যুক্ত। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ধারণকারী ও দেশের সংবিধানের প্রথম হস্তলিপিকার এই অধিদপ্তরেরই চাকরিজীবী ছিলেন এবং অধিদপ্তরের এই স্থানেই ছিল স্বাধীনতা–উত্তরকালে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক কার্যালয়।

গোলাম কিবরিয়ার সভাপতিত্বে প্রধান তথ্য কর্মকর্তা শাহেনুর মিয়া, গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বিধান চন্দ্র কর্মকার, চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন, ডিএফপির পরিচালক মোহাম্মদ আলী সরকার সভায় বক্তব্য দেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন